গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় পঞ্চগড় সদর উপজেলার সাতমেরা ইউনিয়নের শিতলী হাসনা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। মুখপোড়া হনুমান উদ্ধারের খবর পেয়ে রাতে বন বিভাগের কর্মকর্তারা প্রাণীটি উদ্ধার করে পঞ্চগড় বন বিভাগ কার্যালয়ে নিয়ে আসেন। এর আগে গতকাল দুপুরের দিকে হনুমানটি সীমান্ত এলাকায় কাঁটাতারের বেড়া পেরিয়ে বাংলাদেশের সীমানায় ঢুকে পড়েছে বলে ধারণা করছেন বন বিভাগের কর্মকর্তারা।

পঞ্চগড় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদুল হক বলেন, তিন থেকে চার ঘণ্টা ধাওয়া করার পর হনুমানটি ক্লান্ত হয়ে একটি আখখেতে ঢুকেছিল। সেখান থেকে স্থানীয় লোকজন হনুমানটিকে ধরে একটি বাড়িতে নিয়ে রেখেছিলেন। খবর পেয়ে তিনি বিষয়টি বন বিভাগের কর্মকর্তাদের জানান। পরে বন বিভাগের কর্মকর্তারা ওই বাড়িতে গিয়ে হনুমানটি উদ্ধার করেন।

বন বিভাগের পঞ্চগড় সদর উপজেলা বিট কর্মকর্তা সুলতান মাহমুদ মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ‘উদ্ধার হওয়া প্রাণীটি মুখপোড়া হনুমান বলে আমরা নিশ্চিত হয়েছি। উদ্ধারের সময় হনুমানটি বেশ ক্লান্ত ছিল। এর বয়স তিন থেকে চার বছর। ধারণা করা হচ্ছে, খাবারের সন্ধানে হনুমানটি ভারতের সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। উদ্ধারের পর তাকে বিভিন্ন খাবার খাওয়ানো হচ্ছে। আজ শনিবার প্রাণী চিকিৎসকদের মাধ্যমে স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে হনুমানটিকে অবমুক্ত করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’