দেশের ৬৪টি জেলায় প্রথম আলোর আয়োজনে ও শিক্ষার ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ‘শিখো’র পৃষ্ঠপোষকতায় জিপিএ-৫ উৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এ আয়োজনে সহযোগিতা করছে ফ্রেশ, এটিএন বাংলা ও প্রথম আলো বন্ধুসভা। উৎসবে অংশ নিতে জিপিএ-৫ পাওয়া ১ হাজার ২৬০ শিক্ষার্থী নিবন্ধন করেছে।

শুরুতে নিবন্ধন ফরম দিয়ে নির্দিষ্ট বুথের সামনে লাইনে দাঁড়িয়ে সনদপত্র, ক্রেস্ট ও স্ন্যাকস বক্স সংগ্রহ করেন শিক্ষার্থীরা। এরপর জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে উৎসবের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। সংবর্ধনায় শিক্ষার্থীদের জন্য থাকছে ক্রেস্ট, সার্টিফিকেট, প্রথম আলো ই-পেপার (১ মাস) ও চরকির (১৫ দিন) ফ্রি সাবস্ক্রিপশন, শিখোর সৌজন্যে বিনা মূল্যে কোর্স, ফ্রেশ ব্র্যান্ডের স্ন্যাকস বক্স।

জেলা শহর থেকে হরিপুর উপজেলার দূরত্ব ৬৫ কিলোমিটার। সেই উপজেলার শিক্ষার্থী আইরিন আকতার এবার আমগাঁও জামুন উচ্চবিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে জিপিএ–৫ পেয়েছে। উৎসবে অংশ নিতে এসে আইরিন বলে, গোটা জেলার শিক্ষার্থীরা অনুষ্ঠানে আসবে। তাদের সঙ্গে পরিচয় হবে। এই লোভ সামলাতে পারেনি। তাই ভোরেই রওনা হয়েছে।


পীরগঞ্জ থেকে বন্ধুদের সঙ্গে দল বেঁধে এসেছে মাইশা মুস্তারি। সে উপজেলার বণিক সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয় থেকে জিপিএ–৫ পেয়েছে। মাইশা বলে, বন্ধুরা সবাই বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়েছে। তাদের সঙ্গে আর কবে দেখা হবে জানে না। এখানে এসে বন্ধুদের দেখা পেল। পাশাপাশি অন্য শিক্ষার্থীদের সঙ্গেও মেশার সুযোগ হয়েছে।

ইকো পাঠশালা থেকে জিপিএ–৫ পাওয়া কাঞ্চন রায় বলে, উৎসবে এসে তাঁর দারুণ লাগছে। এমন আয়োজন তাঁদের অনুপ্রাণিত করবে।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের দিকনির্দেশনা দিতে উৎসব প্রাঙ্গণে উপস্থিত হবেন মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর রংপুরের সাবেক উপপরিচালক মো. আখতারুজ্জামান, ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল জলিল, ইকো পাঠশালা অ্যান্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা মুহম্মদ শহীদ উজ জামান, ইকো পাঠশালা অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ সেলিমা আখতারসহ অনেক গুণীজন।