ছখিনা বেগম বলেন, হঠাৎ আগস্ট মাস থেকে তাঁর মুঠোফোনে টাকা আসা বন্ধ হয়ে যায়। ঘটনাটি জানতে গত অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে তিনি তাঁর নাতি শিমুল হোসেনকে সঙ্গে নিয়ে উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ে যান। সেখানে গিয়ে ভাতা বন্ধের কারণ জানতে চান। তখন তাঁকে জানানো হয়, ঈশ্বরদী ইউপির চেয়ারম্যান আবদুল আজিজ তাঁকে মৃত উল্লেখ করে দরখাস্ত দিয়ে তাঁর ভাতা বন্ধ করে দিয়েছেন। দরখাস্তে লেখা আছে, আগস্ট মাসের ৮ তারিখে তিনি ‘মারা গেছেন’। এ কথা শোনার পর তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন। পরে সেখানকার কর্মকর্তারা তাঁকে বলেন, চেয়ারম্যান নতুন করে আবার তাঁকে জীবিত দেখিয়ে দরখাস্ত দিলে সমস্যার সমাধান হতে পারে। কিন্তু এ ঘটনা জানাজানির পর তিনি চেয়ারম্যানের সাক্ষাৎ পাচ্ছেন না।

ভুক্তভোগীর নাতি শিমুল হোসেন বলেন, তাঁর নানির পরিবর্তে অন্য কাউকে বয়স্ক ভাতার সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার জন্য হয়তো চেয়ারম্যান এ কাজ করেছেন। এটা অন্যায়। তাঁর নানির ভাতা চালু করা উচিত।

ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল আজিজ আজ শনিবার বলেন, তিনি বিষয়টি মনে করতে পারছেন না। ছখিনা বেগমকে মৃত উল্লেখ করেছেন কি না, তা খোঁজ নিয়ে দেখবেন।

উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. মোত্তালেব সরকার বলেন, এ ব্যাপারে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগটি তদন্ত করে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ভাতা বরাদ্দ কমিটির সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান। তাঁকে বিষয়টি জানানো হয়েছে।

উপজেলা চেয়ারম্যান ইসাহাক আলী জানান, বিষয়টি তিনি শুনেছেন। পরবর্তী সভায় এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।