নিহতের পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নিহত সায়মন বাবা-মায়ের সঙ্গে ফটিকছড়িতে আত্মীয়ের বাড়ি যাচ্ছিল। রাস্তা পার হওয়ার জন্য তাঁরা সড়কের পাশে অপেক্ষা করছিলেন। এ সময় বিবিরহাটগামী দ্রুতগতির একটি মাইক্রোবাস বাবা-মায়ের হাত ধরে সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা সায়মনকে ধাক্কা দেয়। স্থানীয় লোকজন ও ফটিকছড়ি ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত সায়মনের মামা মুহাম্মদ ইয়াসিন প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর ভাগনে হাটহাজারীর একটি মাদ্রাসায় হেফজ বিভাগে পড়ত। হঠাৎ দুর্ঘটনায় তাঁর বোনের বড় ক্ষতি হয়ে গেল।

ফটিকছড়ির নাজিরহাট হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আদিল মাহমুদ বলেন, শিশুটির লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।