এক্স–রে দেখে চিকিৎসক সুরাইয়ার পেটে চলে যাওয়া পিনটির অবস্থান শনাক্ত করেন
ছবি: সংগৃহীত

কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে হিজাবের পিন গিলে ফেলেন সুমাইয়া আক্তার (১৮) নামের এক মাদ্রাসাছাত্রী। গতকাল রোববার সকালে এ ঘটনা ঘটে। পরে রাত আটটার দিকে শহরের একটি বেসরকারি ক্লিনিকে অস্ত্রোপচার ছাড়াই পিনটি বের করে আনেন চিকিৎসক মুহাম্মদ আবিদুর রহমান ভূঞা।

সুমাইয়া আক্তারের বাড়ি জেলার হোসেনপুর উপজেলার গোবিন্দপুর ইউনিয়নে। তিনি স্থানীয় একটি মাদ্রাসায় পড়েন।

শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক মুহাম্মদ আবিদুর রহমান ভূঞা তাঁর ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, ‘মাদ্রাসাছাত্রী সুমাইয়া, বয়স ১৮ বছর। মেয়েটি আজ সকালে হিজাব পিন মুখে নিয়ে হিজাব পরতে গিয়ে গিলে ফেলেন। সন্ধ্যায় মেয়েটিকে তাঁর মামা চেম্বারে আনেন। আমি সেই পিনটি অ্যান্ডোসকপি করে ফরেন বডি ফরসেপ দিয়ে বের করে আনি।’

এই চিকিৎসক বলেন, সুমাইয়াকে সন্ধ্যায় শহরের একটি বেসরকারি ক্লিনিকে নিয়ে এলে তিনি এক্স–রে করে পিনটির অবস্থান দেখেন। পরে অস্ত্রোপচার ছাড়াই আধা ঘণ্টার চেষ্টায় অ্যান্ডোসকপি করে ফরেন বডি ফরসেপ দিয়ে পিনটি বের করে আনেন। পিনটি নাভির কাছাকাছি গিয়ে গেঁথে ছিল। তিনি কখনো মুখে পিন না নেওয়ার পরামর্শ দেন।