তালা উপজেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা নাজমুন নাহার বলেন, গোপন সূত্রে তাঁরা জানতে পারেন, মঙ্গলবার ধানদিয়া ইউনিয়নে সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীর বিয়ের আয়োজন করছে তার পরিবার। খবর পেয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের তালার ধানদিয়া ইউপির জেন্ডার প্রমোটার অপর্ণা দাস, ব্র্যাকের পল্লিসমাজ কর্মসূচির তালা উপজেলার সমন্বয়কারী মোরশেদা রহমান ও গ্রাম পুলিশ সুনীল সরদারকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়।

তাঁরা ঘটনাস্থলে গিয়ে কনের জন্মসনদ দেখতে চান। জন্মসনদ অনুযায়ী কনের বয়স দেখতে পান সাড়ে ১৪ বছর। পরবর্তীকালে তাঁরা বিয়ে বন্ধ করে দিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) বিষয়টি জানান। ইউএনও কনেসহ তার মা-বাবাকে আজ বুধবার বেলা তিনটার দিকে তাঁর কার্যালয়ে হাজির হতে বলেন।

সেই অনুযায়ী আজ তাঁরা তালা ইউএনও কার্যালয়ে হাজির হন। সেখানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ইউএনও ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট প্রশান্ত কুমার বিশ্বাস অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় মেয়েটির বিয়ের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। পাশাপাশি মেয়ের মায়ের কাছ থেকে ১৮ বছরের আগে মেয়েকে বিয়ে দেবেন না মর্মে মুচলেকা গ্রহণ করেন। নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গ করলে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হবে বলে সতর্ক করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।