হল প্রশাসন ও শিক্ষার্থীদের সূত্রে জানা যায়, বুধবার বঙ্গবন্ধু হল থেকে সাইকেল চুরি হয়েছে বলে হল প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করেন খৈয়ম আলী নামের একজন শিক্ষার্থী। পরে হল প্রশাসন ফটকে থাকা সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা করে দেখে, ছাত্রলীগ নেতা মারুফ ও আরিফুল দুটি সাইকেল রিকশায় করে নিয়ে যাচ্ছেন। বিষয়টি জানাজানি হলে এ নিয়ে হলে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে হল প্রশাসন মারুফকে হল থেকে চলে যেতে বলেন। আরেকটি সাইকেল কার ছিল, তা জানা যায়নি।

ছাত্রলীগ নেতা আব্দুল্লাহ আল মারুফ বঙ্গবন্ধু হলের ২১২ নম্বর কক্ষে থাকতেন। অভিযোগের বিষয়ে বক্তব্য জানতে তাঁর মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে নম্বর বন্ধ পাওয়া যায়। তবে হল প্রশাসনের জিজ্ঞাসাবাদে তিনি দাবি করেন, সাইকেলটি তাঁর বড় ভাইয়ের। তবে কোন বড় ভাইয়ের, তা জানাতে পারেননি।

হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক সাইখুল ইসলাম মামুন জিয়াদ বলেন, মারুফ তাঁর সহযোগীসহ দুটি সাইকেল হল থেকে বের করেছেন। একজন শিক্ষার্থী তাঁকে জানিয়েছিলেন যে তাঁর সাইকেল চুরি হয়েছে। পরে সিসিটিভি ফুটেজে মারুফসহ আরেকজনকে দেখা যায়। এ নিয়ে হলে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে তাঁকে হলে রাখা হয়নি। তাঁর সিট বাতিল করা হয়েছে। রোববার এটি দাপ্তরিকভাবে কার্যকর করা হবে।