এ সময় কথা হলে মৌসুমি আক্তার বলেন, ‘সকাল ১০টা থেকে এখানে দাঁড়িয়ে আছি। দুই ঘণ্টা হয়ে গেছে কিন্তু বাসের নাগাল পেলাম না। তিনটার সময় পরীক্ষা।’ ঢাকায় গিয়ে পরীক্ষা দিতে পারবেন কি না, তা নিয়ে তিনি সংশয় প্রকাশ করেন।

এদিকে তেলের মূল্যবৃদ্ধির কারণ দেখিয়ে ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক ও অভ্যন্তরীণ সড়কের অনেক বাসে যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। ইসরাত জাহান নামের অপর এক পরীক্ষার্থী বলেন, ‘এত দিন শিবালয়ের বরঙ্গাইল থেকে মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত ২০ টাকা বাস ভাড়া দিয়ে আসছি। আজ বাসভাড়া ৩০ টাকা দিতে হয়েছে। তাও প্রায় এক ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থেকে বাস পেয়েছি।’

আজ সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বিভিন্ন পরিবহনের বাসগুলো টার্মিনাল ও সড়কের পাশে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছে। জ্বালানি তেলের দাম বাড়ায় অনেক পরিবহনের মালিক বাস চলাচল বন্ধ রেখেছেন।

default-image

শুভযাত্রা পরিবহনের একটি বাসের মালিক পিন্টু মিয়া বলেন, আকস্মিকভাবে সরকার জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়েছে। কিন্তু ভাড়া বাড়ানোর ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এ অবস্থায় গাড়ি চলাচল করলে লোকসান গুনতে হবে। তাই অনেকে বাস নামাচ্ছে না।

নীলাচল পরিবহনের কাউন্টারের ইনচার্জ চণ্ডী চক্রবর্তী বলেন, ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে প্রতিদিন তাঁদের ৭০টি বাস চলাচল করে। তবে আজ দুপুর ১২টা পর্যন্ত মাত্র ২৫টি বাস চলাচল করছে।
সড়কে বাসের সংকট থাকায় একটি বাস এলেই যাত্রীরা হুড়োহুড়ি করে বাসে ওঠার চেষ্টা করছেন। এসব বাসে গাদাগাদি করে যাত্রীরা ঢাকায় যাতায়াত করছেন। বাসসংকটের কারণে অনেকেই ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে অবৈধ যান লেগুনায় করে গন্তব্যে পৌঁছানো চেষ্টা করছেন।

পারিবারিক জরুরি কাজে ঢাকায় যাচ্ছিলেন জেলা শহরের পশ্চিম দাশড়া গ্রামের ৭০ বছর বয়সী সোলায়মান হোসেন। তিনি বলেন, রাস্তায় বাস নেই বললেই চলে। একটা-দুইটা বাস এলেও সেগুলো পাটুরিয়া ঘাট থেকে যাত্রী বোঝাই করে নিয়ে আসছে। জায়গা না থাকায় বাসে ওঠার মতো পরিস্থিতি নেই।

জেলা বাস মালিক সমিতির সভাপতি ও মানিকগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম বলেন, জ্বালানি তেলের মূল্য অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি করা হয়েছে। তবে বাসের ভাড়া বাড়ানোর নিয়ে সরকারিভাবে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। মূলত, এ কারণেই রাস্তায় বাস কম। তবে সরকার দ্রুত সময়ের মধ্যে ভাড়ার বিষয়টি সমন্বয় করবে বলে মনে করছেন তিনি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন