শামীম হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, জাতীয় ভোক্তা–অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের (অতিরিক্ত সচিব) ক্ষমতাবলে ও জেলা প্রশাসকের নির্দেশনায় এই অভিযান চালানো হয়। এ সময় তিনটি প্রতিষ্ঠানকে ভিন্ন ভিন্ন অপরাধে মোট ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। তিনি বলেন, ভোক্তা স্বার্থ রক্ষায় ও বাজার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে নিয়মিত এ ধরনের অভিযান চলমান থাকবে।

জাতীয় ভোক্তা–অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে আজ দুপুরে উপজেলা সদরের বাজারে বিভিন্ন ইলেকট্রনিকস, কসমেটিকস ও খাবারের হোটেলে স্থানীয় থানা-পুলিশের সহযোগিতায় অভিযান চালায় জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। এ সময় চার্জার ফ্যানের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ৩ হাজার ৬৫০ টাকার পরিবর্তে ৩ হাজার ৮০০ টাকায় বিক্রির অভিযোগে মা ইলেকট্রনিকস নামের একটি প্রতিষ্ঠানের মালিককে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এ ছাড়া বিদেশি প্রসাধনীতে আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের স্টিকার না থাকায় অঞ্জলী কসমেটিকসকে ৫ হাজার ও একজন ভোক্তার অভিযোগের ভিত্তিতে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ ও পচা খাবার ফ্রিজে সংরক্ষণের অপরাধে সীমানা কফি হাউসকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অভিযানের সময় মান্দা থানার পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) মোহাইমিনুল আবদুল্লাহর নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল উপস্থিত ছিল।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন