পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্র জানায়, শ্যামারগাঁও গ্রামের সবুজ মিয়া ও বাগাউরা গ্রামের সুমন মিয়ার মধ্যে বিবিয়ানা নদীতে মাছ ধরা নিয়ে দুপুরে কথা–কাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে দুই গ্রামের মসজিদে ঘোষণা দিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন দুই গ্রামের বাসিন্দারা। ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষে উভয় পক্ষের কমপক্ষে ৩০ জন আহত হন।

তাঁদের মধ্যে সাজ্জাদ মিয়া (২৮), ফরুক মিয়া (৩২), সবুজ মিয়া (২৬), হবেজুল মিয়া (৩৬), বাচ্ছু মিয়া(২৮), মজমুল মিয়া (২২), রাজা মিয়া (২৫), সেলিম মিয়া (২৮), ছানাওর মিয়া (২৪) ও রহিম উদ্দিনকে (৩৩) সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহত বাকি ব্যক্তিদের জগন্নাথপুর ও নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী পাইলগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সদস্য ফতু মিয়া বলেন, মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুই গ্রামের বাসিন্দারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। পুলিশ ও এলাকাবাসীর সহযোগিতায় এক ঘণ্টা পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

উভয় পক্ষের আহত ব্যক্তিদের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে জানিয়ে জগন্নাথপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, ‘সংঘর্ষের খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন