স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত রোববার আদমপুর ইউপি কার্যালয়ে নজরুল ইসলাম তাঁর স্ত্রীর নাগরিকত্ব সনদ নিতে গেলে চেয়ারম্যান আবদাল হোসেন বিয়ের কাবিননামা দেখতে চান। নজরুল কাবিননামা দেখাতে অস্বীকৃতি জানালে চেয়ারম্যান তাঁকে নাগরিকত্ব সনদ দেননি। এতে চেয়ারম্যানের সঙ্গে নজরুলের উত্তপ্ত পরিস্থিতি তৈরি হয়। এ সময় উপস্থিত লোকজন নজরুলকে নিবৃত্ত করেন। পরদিন সোমবার আদমপুর বাজারে স্থানীয় ইউপি সদস্য রুসন আলীর সঙ্গে এ নিয়ে নজরুলের তুমুল বাগ্‌বিতণ্ডার একপর্যায়ে হাতাহাতি হয়। পরে এ নিয়ে ইউপি কার্যালয়ে চেয়ারম্যানের সঙ্গে নজরুলের পুনরায় বাগ্‌বিতণ্ডা হয়।

চেয়ারম্যান আবদাল হোসেন বলেন, নজরুল বহু বছর ধরে রোহিঙ্গা অধ্যুষিত অঞ্চলসংলগ্ন চট্টগ্রামের রাউজান এলাকায় বসবাস করেন। তিনি একাধিক বিয়েও করেছেন। তাঁর স্ত্রীর নাগরিকত্ব সনদ দিতে হলে যাচাই-বাছাইয়ের জন্য তাঁদের বিয়ের কাবিননামা দেখতে চান। নজরুল তা দেখাতে অস্বীকৃতি জানালে তিনি তাঁকে কাবিননামা নিয়ে এসে নাগরিকত্ব সনদ নিতে বলেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে নজরুল তাঁর ওপর হামলার চেষ্টা করেন এবং সেখানে উপস্থিত ইউপি সদস্য রুসন আলীর গায়ে হাত তোলেন।

সরকারি কাজে বাধা ও হামলাচেষ্টার অভিযোগে চেয়ারম্যান আবদাল হোসেন গতকাল রাতেই কমলগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দেন, যা পরে মামলা হিসেবে নথিভুক্ত হয়। অভিযোগ পেয়ে পুলিশ অভিযুক্ত নজরুলকে আটক করে।

কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইয়ারদৌস হাসান, গতকাল রাতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অভিযোগের সত্যতা পেয়ে আসামিকে আটক করেছেন তাঁরা। অভিযোগটি মামলা হিসেবে গ্রহণ করে আটক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন