খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নতুন উপাচার্য আবুল কাশেম চৌধুরী ১৯৮৪ সালে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদ থেকে স্নাতক এবং ১৯৮৮ সালে কৌলিতত্ত্ব ও উদ্ভিদ প্রজনন বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। ২০০১ সালে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে থাইল্যান্ডের ক্যাসেটসার্ট ইউনিভার্সিটি থেকে জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ২০০৩ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত জাপান ইন্টারন্যাশনাল রিসার্চ সেন্টার ফর অ্যাগ্রিকালচারাল সায়েন্স, জাপানে পোস্ট ডক্টোরাল ফেলো হিসেবে মার্কার অ্যাসিস্টেড সিলেকশন বিষয়ে গবেষণা করেন। আন্তর্জাতিক ও জাতীয় পর্যায়ে বিভিন্ন জার্নালে তাঁর ৫৩টি বৈজ্ঞানিক গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। এ ছাড়া তিনি জাপান, যুক্তরাষ্ট্র ও থাইল্যান্ডের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর গবেষণা প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

আবুল কাশেম চৌধুরীর পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৌলিতত্ত্ব ও উদ্ভিদ প্রজনন বিভাগের অধ্যাপক।

অধ্যাপক আবুল কাশেম চৌধুরীর বাড়ি নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায়। তাঁর জন্ম ১৯৬২ সালের ১ অক্টোবর। ১৯৮৯ সালে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট পরিচালিত পটুয়াখালী কৃষি কলেজের (বর্তমানে পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়) উদ্ভিদ প্রজনন বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগ দিয়ে শিক্ষকতা পেশা শুরু করেন। তিনি দীর্ঘ ৩৪ বছর বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা ও গবেষণায় নিয়োজিত রয়েছেন।

তিনি কৌলিতত্ত্ব ও উদ্ভিদ প্রজনন বিভাগ ও বায়োটেকনোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান, কৃষি অনুষদের ডিন, পোস্ট গ্র্যাজুয়েট স্টাডিজের ডিন, রিজেন্ট বোর্ডের সদস্য, একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য, ডিন কাউন্সিলের আহ্বায়ক, হলের প্রাধ্যক্ষ, প্রক্টর, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক, বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গবেষণাগারের প্রধান, রিসার্চ অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টারের পরিচালক এবং শারীরিক শিক্ষা বিভাগের পরিচালকসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রশাসনিক দায়িত্ব পালন করছেন।