পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার কোকডোহরা ইউনিয়নের পাছ চারান গ্রামের জেলে আজগর আলী (৬৫) নিজ ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। গভীর রাতে ছেলে রাশেদ মিয়া কুড়াল নিয়ে তাঁর ওপর হামলা করেন। কুড়ালের আঘাতে মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম হয়। এতে ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়।

স্থানীয় ব্যক্তিরা জানান, লাশ ঘরে রেখে রাশেদ মিয়া ভোরে স্থানীয় মসজিদে যান। তিনি মসজিদের ইমামের কাছে বাবাকে হত্যার কথা জানান এবং মাইকে প্রচার করতে বলেন। ইমাম স্থানীয় লোকদের সহায়তায় রাশেদকে আটক করেন। খবর পেয়ে পুলিশ সকালে গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে। পুলিশ রাশেদকে আটক করেছে।

কালিহাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোল্লা আজিজুর রহমান বলেন, স্থানীয় ব্যক্তিদের সহযোগিতায় রাশেদ মিয়াকে আটক করা হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত মামলা হয়নি।

কোকডহরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বলেন, রাশেদ মিয়া কয়েক বছর আগে বিদেশে গিয়েছিলেন। সেখানে কাজকর্ম করতে না পেরে মানসিক রোগে আক্রান্ত হয়ে দেশে ফিরে আসেন। তারপর থেকেই মানসিক ভারসাম্যহীন অবস্থায় বাড়িতে থাকতেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন