ছাত্রলীগের লোগো

সংগঠনের নীতি ও আদর্শের পরিপন্থী কার্যকলাপে জড়িত থাকায় ভোলায় ছাত্রলীগের পাঁচ নেতা-কর্মীকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। তাঁদের স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ করা হয়েছে। আজ বুধবার ভোলা জেলা ছাত্রলীগ এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানায়। গত ৭ দিনে ৯ নেতা-কর্মীকে বহিষ্কার করল ছাত্রলীগ।

নেতা-কর্মীরা বলছেন, ওই পাঁচ নেতা-কর্মী মানবতাবিরোধী অপরাধে আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর মৃত্যুতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শোক প্রকাশ করেন। এর জেরে তাঁদের বহিষ্কার করা হয়েছে। এর আগে গত শনিবার দৌলতখান উপজেলা ছাত্রলীগের চার নেতা-কর্মীকে একই কারণে বহিষ্কার করা হয়।

জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রাইহান আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক হাসিব মাহমুদ এ বিজ্ঞপ্তিতে গতকাল মঙ্গলবার সই করেন। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সংগঠনের নীতি ও আদর্শের পরিপন্থী কাজ করায় তজুমদ্দিন উপজেলার শম্ভুপুর ইউনিয়ন (দক্ষিণ শাখা) ছাত্রলীগের সভাপতি খান মোহাম্মদ ইব্রাহিম; বোরহানউদ্দিন উপজেলার হাসান নগর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি তন্ময় হাসান রিয়াদ মীর, উপজেলার ৪ নম্বর কাচিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি পিকুরুল ইসলাম বাহার; দৌলতখান উপজেলার আবু আবদুল্লাহ কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আমির খসরু ও সদর উপজেলা চরসামাইয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কর্মী মিরাজ আফসানকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

নেতা-কর্মীদের কেন বহিষ্কার করা হয়েছে, জানতে চাইলে ছাত্রলীগ সভাপতি রাইহান আহমেদ বলেন, কী কারণে বহিষ্কার করা হয়েছে, তা একান্তই অভ্যন্তরীণ বিষয়, এটা প্রকাশ করা যাবে না। দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে কেন্দ্রের নির্দেশে তাঁদের বহিষ্কার করা হয়েছে।

এর আগে শনিবার দৌলতখান উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি নাবিউর রহমান, মেহরাব হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মাসরাফি চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক রকিবুল ইসলামকে একই কারণ দেখিয়ে বহিষ্কার করা হয়।