ব্রাজিল সমর্থক জহিরুল ইসলাম বলেন, ‘ফুটবল বিশ্বকাপ এলেই আমরা সবাই উজ্জীবিত হই। ব্রাজিল একটি নান্দনিক ও শৈল্পিক ফুটবল দল। আমরা একটু আনন্দ করার জন্য একত্র হয়েছি। আশা করি, এবারের আসরে ব্রাজিল চ্যাম্পিয়ন হবে।’ আরেক সমর্থক ওবায়দুর রহমান বলেন, ‘ব্রাজিল দলের প্রতিটি খেলোয়াড় স্টার। তাঁরা পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের নামীদামি ক্লাবে খেলে থাকেন। ছোটবেলা থেকেই ব্রাজিলকে সমর্থন করি। এবারের ট্রফি শোভা পাবে নেইমারের হাতে।’

শোভাযাত্রার অন্যতম আয়োজক বাহাদুর আলম বলেন, ‘ফেসবুকের মাধ্যমে আমরা সবাই যোগাযোগ করে এই আনন্দ শোভাযাত্রার আয়োজন করেছি।’ তিনি বলেন, ব্রাজিল মানেই একটি অনুভূতি ও ভালোবাসার নাম। চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলই হবে।

এবার কাতারে অনুষ্ঠিত ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিভিন্ন ফুটবল দলের সমর্থকদের মধ্যে শুরু হয়েছে উন্মাদনা। বিভিন্ন বাসা-বাড়ির ছাদে, রাস্তার পাশে টানানো হয়েছে প্রিয় দলের পতাকা। প্রিয় দলের পতাকার আদলে করা হয়েছে বাড়ির রং। কার চেয়ে কে বড় পতাকা টানাবে, এই প্রতিযোগিতাও শুরু হয়েছে। শহরের দোকানগুলোতে চলছে আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, জার্মানিসহ বিভিন্ন দলের পতাকা বিক্রির ধুম।

ইতিমধ্যেই ছেলের আবদার রক্ষা করতে শহরের মধ্যপাড়ার তালতলায় আর্জেন্টিনার পতাকার আদলে পাঁচতলা ভবনে রং করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মাহাবুবুল আলম। জেলার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার দড়িকান্দি ইউনিয়নের খাল্লা গ্রামের আবু কাউছার তাঁর নিজ বাড়ি থেকে শ্বশুরবাড়ি পর্যন্ত প্রায় চার কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের দক্ষিণ কোরিয়ার পতাকা টানিয়েছেন। প্রয়াত বাবার স্মৃতি ধরে রাখতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার রামরাইল ইউনিয়নের উলচাপাড়া গ্রামে আর্জেন্টিনা দলের পতাকার আদলে বসতঘরের চারপাশ রং করেছেন দুই ভাই।