ক্ষোভ প্রকাশ করে মোহাম্মদ রানা বলেন, গত ৯ আগস্ট ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে তাঁর আট মাস বয়সী মেয়ে তাসকিয়ার মৃত্যু হয়েছে। তাসকিয়ার প্রথমে জ্বর আসে। চার দিন বাসাতে চিকিৎসা দেওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে তাকে ভর্তি করা হয় কক্সবাজার সদর হাসপাতালে। সেখানে চিকিৎসাধীন তাসকিয়ার মৃত্যু হয়।

পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আক্তার কামাল বলেন, এক মাস ধরে প্রতিটি ঘরে ঘরে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী পাওয়া যাচ্ছে। তাঁর পরিবারের স্ত্রী–সন্তান সবাই ডেঙ্গুতে আক্রান্ত।

আক্তার কামাল বলেন, তাঁর এই ওয়ার্ডে ছয়-সাত হাজার মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত। সময়মতো নালা পরিষ্কার না করা এবং মশকনিধন কার্যক্রম না থাকায় লোকজন আক্রান্ত হচ্ছে বেশি।

হাসপাতালে রোগীর চাপ

সর্বশেষ ১ সেপ্টেম্বর কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ৫২ রোগী। এর মধ্যে ৪৭ জন কক্সবাজার পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের সমিতির পাড়া, কুতুবদিয়াপাড়া ও পাহাড়তলীর বাসিন্দা। বাকি পাঁচজন রোহিঙ্গা।

গত ৩১ আগস্ট হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন ৪৭ ডেঙ্গু রোগী। এর মধ্যে ৪২ জন ওই তিন গ্রামের বাসিন্দা। অন্য পাঁচজন রোহিঙ্গা। ৩০ আগস্ট ভর্তি ছিল ৪০ জন। এর মধ্যে ৩২ জন তিন গ্রামের বাসিন্দা। বাকি আটজন রোহিঙ্গা।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, গত মাসে হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন ৩৬৯ ডেঙ্গু রোগী। মারা গেছেন ছয়জন। জুলাই মাসে চিকিৎসা নিয়েছেন ২৫০ জন। মারা গেছেন ছয়জন। সবাই রোহিঙ্গা। জুন মাসে চিকিৎসা নিয়েছেন ২৫০ ডেঙ্গু রোগী। মারা গেছেন এক রোহিঙ্গা।

কক্সবাজার সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. মোমিনুর রহমান বলেন, আগে রোহিঙ্গাদের মধ্যে ডেঙ্গু রোগী বেশি পাওয়া গেলেও এখন স্থানীয় ব্যক্তিরাও আক্রান্ত হচ্ছেন। বিশেষ করে সমুদ্র উপকূলের নাজিরারটেক, সমিতির পাড়া, কুতুবদিয়াপাড়া ও পাহাড়তলী এলাকায় ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়ছে।

তিন আশ্রয়শিবিরে ডেঙ্গু

উখিয়া ও টেকনাফের ৩৩টি আশ্রয়শিবিরে বর্তমানে নিবন্ধিত রোহিঙ্গার সংখ্যা সাড়ে ১২ লাখ। এর মধ্যে ২৩টি আশ্রয়শিবিরে কমবেশি ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হলেও ডেঙ্গুর হটস্পট হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে উখিয়ার তিনটি আশ্রয়শিবির। এগুলো হলো কুতুপালং আশ্রয়শিবির (ক্যাম্প-৩), লম্বাশিয়া আশ্রয়শিবির (ক্যাম্প-৪) ও কুতুপালং রেজিস্টার্ড আশ্রয়শিবির (ক্যাম্প-১ ওয়েস্ট)। ক্যাম্প-৩ শিবিরে আক্রান্ত ৩ হাজার ৯২২ জন, ক্যাম্প-৪ শিবিরে ৯৫৬ জন ও ক্যাম্প-১ ওয়েস্ট শিবিরে ৭০৭ জন।

জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্যমতে, চলতি বছর আগস্ট পর্যন্ত জেলায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১২ হাজার ২৪৬। এর মধ্যে রোহিঙ্গা ১১ হাজার ৬৫৮ জন এবং স্থানীয় ৫৫৮ জন। এ পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২৪ জন। এর মধ্যে ২২ জন রোহিঙ্গা ও ২ জন স্থানীয়।

কুতুপালং আশ্রয়শিবিরে (ক্যাম্প-৩) ডি ১৬ ব্লকের রোহিঙ্গা করিম উল্লাহ বলেন, শিবিরের অভ্যন্তরে পাহাড় থেকে নেমে আসা কয়েকটি ছড়া-খাল দীর্ঘদিন ময়লা-আবর্জনায় ভরে আছে। ময়লার সঙ্গে পানি জমে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। জন্ম নিচ্ছে এডিস মশা। মশার কামড়ে ডেঙ্গু হয়ে তাঁর চার বছর বয়সী মেয়ে জিসমার মৃত্যু হয়েছে জানিয়ে করিম উল্লাহ বলেন, জ্বরে আক্রান্ত হওয়ার পর মেয়েকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। ওখানে রক্তবমি করে মেয়ে মারা গেছে।

শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি) কার্যালয়ের স্বাস্থ্য সমন্বয়কারী ডা. আবু তোহা ভূঁইয়া বলেন, তিনটি ক্যাম্পেই ডেঙ্গুর প্রকোপ বেশি পাওয়া যাচ্ছে। আশ্রয়শিবিরের খাল-ছড়ার পাশাপাশি ঘরের আঙিনা পরিষ্কার, জীবাণুনাশক কীটনাশক ছিটিয়ে ডেঙ্গু নির্মূলের
কাজ চলমান।

সিভিল সার্জন মাহবুবুর রহমান বলেন, রোহিঙ্গা শিবিরের তিনটি ক্যাম্পকেই ডেঙ্গুর হটস্পট হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। শিবিরগুলোয় ঘনবসতি বেশি। প্রতি ঘরে ৮ থেকে ১০ জন গাদাগাদি করে বাস করছেন। এ কারণে একজনের ডেঙ্গু হলে অন্যদেরও আক্রান্তের ঝুঁকি থাকে। পানিনিষ্কাশনের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না থাকায় সেখানে মশা জন্মানোর সুযোগ বেশি।