প্রথম আলো: করোনাকালে দীর্ঘদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠদান বন্ধ ছিল। পড়ালেখার সেই ক্ষতি কীভাবে পুষিয়ে নেওয়া যেতে পারে?

আবু তোরাব মানিক: করোনাকালে দেশের, বিশেষ করে মফস্বলের শিক্ষার্থীদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। মফস্বলের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার মান নিয়ে এমনিতে প্রশ্ন রয়েছে। তার ওপর শ্রেণিপাঠ বন্ধ, মূল্যায়ন ছাড়াই পরের শ্রেণিতে উত্তীর্ণ করে দেওয়ায় শিক্ষার্থীরা অনেক পিছিয়ে পড়েছে। এখন করোনার সংক্রমণ কিছুটা নিয়ন্ত্রণে। এই সময়ে একটি সুষ্ঠু পরিকল্পনা করে শিক্ষার্থীদের ঘাটতি পূরণ করার ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। প্রয়োজনে ছুটির সময়ও বিশেষ পাঠ কার্যক্রম সচল রাখা যেতে পারে। কিন্তু এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এখনো সেভাবে এই কার্যক্রম নজরে পড়ছে না।

প্রথম আলো: পাঠ বন্ধ করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে রাজনৈতিক কর্মসূচি আয়োজনের প্রবণতা দেখা যাচ্ছে, এটাকে কীভাবে দেখেন?

আবু তোরাব মানিক: এটা খুবই দুঃখজনক। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পাঠ বন্ধ করে, শিক্ষার্থীদের নিয়ে রাস্তায় দাঁড়িয়ে যখন রাজনৈতিক ব্যক্তি ও জনপ্রতিনিধিদের অভিনন্দন-সংবর্ধনা দেওয়া শুরু হয়েছিল, তখন সরকারের পক্ষ থেকে এসব কর্মকাণ্ডের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। এখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠদান বন্ধ রেখে রাজনৈতিক কর্মসূচি আয়োজনের একটা প্রবণতা দেখা যাচ্ছে, এটা হতাশাজনক। এটা অনৈতিক। এখন উপজেলা পর্যায়ে সভা-সমাবেশ, সম্মেলন আয়োজনের উপযোগী অনেক মিলনায়তন ও মাঠ আছে। সেসব স্থানে সভা-সমাবেশের আয়োজন করা হলে শিক্ষার্থীদের পাঠদান বন্ধ রাখতে হয় না।

প্রথম আলো: বিশেষ প্রয়োজনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানের হাতে সংরক্ষিত ছুটি দেওয়ার বিধান আছে। কিন্তু রাজনৈতিক দলের কর্মসূচি আয়োজনের ক্ষেত্রে সংরক্ষিত ছুটি প্রদান করার বিষয়টিকে কীভাবে দেখছেন?

আবু তোরাব মানিক: শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানের হাতে সংরক্ষিত ছুটি আছে। এ ছুটি তাঁরা প্রতিষ্ঠানের বিশেষ প্রয়োজনে দিতে পারেন। কিন্তু সংরক্ষিত ছুটির নামে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পাঠদান বন্ধ রেখে রাজনৈতিক দলের সভা-সমাবেশ আয়োজন শতভাগ অনৈতিক। শুধু অনৈতিকই নয়, এটা অপরাধ হিসেবে গণ্য করা যেতে পারে। বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানরা অধিকাংশই রাজনৈতিকভাবে নিয়োগ পাওয়া। তাঁরা আবার সরাসরি রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। সংরক্ষিত ছুটির নামে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে রাজনৈতিক দলকে সভা-সমাবেশের আয়োজন করতে দেওয়া মোটেও কাম্য নয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন