বর আনিসুর রহমান জানান, তিনি যখন ছোট ছিলেন, তখন তাঁর বাবা বলেছিলেন, ‘ছেলে আমার ঘোড়ার গাড়িতে চড়ে বিয়ে করতে যাবে।’ বাবার ওই ইচ্ছা পূরণ করতেই তিনি আজ (শুক্রবার) ঘোড়ার গাড়িতে চড়ে পাঁচ কিলোমিটার দূরে কনের বাড়িতে যান। বিয়ে করে কনেকে নিয়ে ঘোড়ার গাড়িতে বাড়ি ফেরেন। তবে ঘোড়ার গাড়ি স্বল্পতায় বরযাত্রীদের মাইক্রোবাসে যাতায়াত করতে হয়েছে। তাঁদের যাওয়া-আসার সময় শত শত মানুষ রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে শুভেচ্ছা জানায়।

ঘোড়ার গাড়ির চালক মুশফিকুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, অনেক আগে ঘোড়ার গাড়িতে বিয়ে করতে যাওয়ার রেওয়াজ ছিল। তবে বাস-মাইক্রোবাস চালু হওয়ার পর মানুষ আর ঘোড়ার গাড়িতে বিয়ে করতে যায় না। অনেক বছর পর তিনি আজ বিয়ের ভাড়া পেলেন। শখ করে গাড়িটি সাজিয়েছেন। খোলা গাড়িতে চড়ে বাতাস খেতে খেতে বর-কনে যাতায়াত করেন।

আনিসুর রহমানের বাবা আমিন উদ্দিন বলেন, ‘ছেলে যখন ছোট ছিল, তখন থেকে স্বপ্ন দেখতাম, ঘোড়ার গাড়িতে বিয়ে করতে যাবে ছেলে। আজ তাঁর সেই ইচ্ছা ছেলে পূরণ করেছে। তিনি খুবই খুশি হয়েছেন।’ ঘোড়ার গাড়ি কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, আগে রাজার ছেলেমেয়েদের বিয়ে হতো ঘোড়ার গাড়িতে করে। সেই ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতেই ঘোড়ার গাড়িতে বরযাত্রার ইচ্ছা।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন