কামরুজ্জামানের পরিবারের সদস্যরা বলেন, কামরুজ্জামান ওই বাড়ির নিচতলায় থাকেন। গতকাল রাতে কামরুজ্জামান তাঁর স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে বাসায় ঘুমিয়ে ছিলেন। রাত সাড়ে তিনটার দিকে ডাকাত দল জানালার গ্রিল কেটে ঘরে ঢুকে। এ সময় ডাকাত দলের সদস্যরা প্রথমে কামরুজ্জামানের স্ত্রীর গলায় ছুরি ধরে। এ সময় কামরুজ্জামান বাধা দিতে গেলে ডাকাত দলের একজন তাঁর হাতে ছুরিকাঘাত করে। এতে কামরুজ্জামান আহত হন। এই অবস্থায় কামরুজ্জামানের পরিবারের সদস্যদের জিম্মি করে ডাকাতেরা আলমারি থেকে একটি স্বর্ণের চেইন ও ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা নিয়ে চলে যায় বলে দাবি করেন কামরুজ্জামান।

কামরুজ্জামান বলেন, ‘ডাকাতদের মধ্যে তিনজন ঘরের ভেতরে আসে। বাইরে আরও কয়েকজন ছিল। আমি প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা করি। তবে ছুরিকাঘাত করার পর আমার শরীর থেকে রক্ত বের হচ্ছিল। এই অবস্থায় আমাদের আর কিছু করার ছিল না। রাতেই জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়েছি। হাতে দুটি সেলাই দেওয়া হয়েছে।’

ডাকাতির খবর পেয়ে আজ বুধবার দুপুরে কুলিয়ারচর থানার পুলিশ কামরুজ্জামানের বাসা পরিদর্শন করেছেন। কুলিয়ারচর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) দেব দুলাল বলেন, এ ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের ধরার চেষ্টা করা হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন