রোহিঙ্গাদের আঞ্চলিক ভাষায় ধারণ করা ওই ভিডিওতে মোহাম্মদ হাশিম এক হাতে পিস্তল প্রদর্শন করে প্রথমে সবাইকে সালাম দেন। তারপর নিজের পরিচয় দিয়ে বলেন, ‘আঁর নাম মোহাম্মদ হাশিম, বাপন (বাবা) নাম মৃত আবদু জব্বর, আঁই (আমি) বুচিডং অর (মিয়ানমার রাখাইন রাজ্যের) কোয়ানচিমং পাড়ার। বাংলাদেশত হইলদে (আছি) ক্যাম্প-১৮, ব্লক-ইস্ট-৩। মাঝি আবদুল জব্বার।’

তারপর হাশিম বলেন, ক্যাম্প-১৮–এর ২৫ জন রোহিঙ্গা তরুণ-যুবককে ২৫টি পিস্তল দেওয়া হয়। তাঁদের পিস্তল দিয়েছে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী গ্রুপ ইসলামি মাহাসের জিম্মাদার সাহাব উদ্দিন, রহমত উল্লাহ, হেড মাঝি ভূঁইয়া, মৌলভি রফিক। এই চারজন ওই সংগঠনের নেতৃত্ব দেন।

ভিডিও বার্তায় বলা হয়, ইসলামি মাহাসের কাজ হলো হত্যার মিশন বাস্তবায়ন করা। মানুষ হত্যার জন্য ২৫ জন রোহিঙ্গা তরুণকে দেওয়া হয় মোটা অঙ্কের টাকা। তরুণদের মূল কাজ ছিল যাঁরা প্রত্যাবাসন নিয়ে কাজ করেন, তাঁদের হত্যা করা। গত ৫-৬ দিনের মধ্যে তাঁরা (তরুণেরা) তিন মাঝিসহ এক স্বেচ্ছাসেবককে হত্যা করেছেন।
ভিডিও বার্তায় হত্যার শিকার রোহিঙ্গা মাঝিদের নামও বলেন মোহাম্মদ হাশিম। তাঁরা হলেন ১৮ নম্বর ক্যাম্পের হেড মাঝি জাফর, ৭ নম্বর ক্যাম্পের ইসমাঈল, কুতুপালং সম্প্রসারিত ক্যাম্প-৪ এইচ ব্লকের এরশাদ ও হেড মাঝি আজিমুল্লাহ। মোহাম্মদ হাশিম নিজেকে ইসলামি মাহাসের সদস্য বলে পরিচয় দেন।

ভিডিওতে মোহাম্মদ হাশিমকে বলতে দেখা যায়, তাঁদের সামনে আরও বড় মিশন ছিল। কিন্তু তিনি নিজের ভুল বুঝতে পেরেছেন। তাই এই খারাপ জগৎ ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে চান।

ভিডিও বার্তার শেষ দিকে মোহাম্মদ হাশিম বলেন, চারজন মাঝিকে হত্যার পর একসময় ইসলামি মাহাসের নেতারা তাঁদের টাকা দেওয়া বন্ধ করে দেন। তখন লাভ-ক্ষতির চিন্তা করতে থাকেন। হাশিম বলেন, ভেবেছিলেন তাঁরা নিজেদের ভাই-বন্ধুদের হত্যা করছেন, বংশ শেষ করে ফেলছেন। এটা অন্যায় কাজ হচ্ছে, বুঝতে পেরে ক্ষমা চাওয়ার জন্য ভিডিওর সামনে এসেছেন। তিনি মা-বোন সবার কাছে ক্ষমা চান।

ভিডিওটি পর্যালোচনা করে দেখা যায়, রাতে ক্যাম্পের কোনো বসতিতে ভিডিওটি ধারণ করা। তরুণের পেছনে বাঁশের বেড়া আছে। ভিডিও বার্তার হাশিম নামের তরুণকে শিক্ষিত মনে হয়েছে এবং তিনি বার্তাটি কোথাও দেখে দেখে পড়ছিলেন। ভিডিওটি ধারণ করেছেন অন্য কেউ। পরিকল্পিতভাবে ভিডিওটি প্রচার করা হয়েছে বলে অনেকের ধারণা।

মোহাম্মদ হাশিমের এই ভিডিও ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে আশ্রয়শিবিরে রোহিঙ্গাদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ক্যাম্প-১১ (বালুখালী) আশ্রয়শিবিরের একজন রোহিঙ্গা নেতা বলেন, মোহাম্মদ হাশিম নামের ওই তরুণ অনেকের পরিচিত মুখ। কিন্তু বেশ কয়েক মাস ধরে তিনি আত্মগোপনে। ভিডিও বার্তায় খুন হওয়া যে কয়েকজনের নাম বলা হয়েছে, তারা যে খুনের শিকার, এ কথা ঠিক। কিন্তু এই তরুণদের গুলিতে ওরা মারা গেছে, এ কথা জানা ছিল না কারও। ভিডিও প্রচারের পর থেকে আশ্রয়শিবিরে মাঝিসহ সাধারণ রোহিঙ্গাদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একজন কর্মকর্তা বলেন, ইসলামি মাহাস নামের সংগঠনটি আশ্রয়শিবিরে কয়েক বছর ধরে তৎপর আছে। ক্যাম্পের অভ্যন্তরে দুই হাজারের বেশি মাদ্রাসা-মক্তব আছে। এসব ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হয় বিদেশ থেকে পাঠানো টাকায়। টাকার ভাগাভাগি নিয়ে মাদ্রাসার শিক্ষকেরা দ্বিধাবিভক্ত। একটি পক্ষ ইসলামি মাহাস, অন্যটি ওলামা পরিষদ ব্যানারে তৎপর। তবে ইসলামি মাহাস চলে মিয়ানমারের সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান স্যালভেশন আর্মি (আরসা) সমর্থনে। ওলামা পরিষদ আশ্রয়শিবিরে প্রত্যাবাসনের পক্ষে কাজ করে।

রোহিঙ্গা নেতারা জানিয়েছেন, ইসলামি মাহাস আশ্রয়শিবিরে শিক্ষিত রোহিঙ্গা তরুণদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়ে পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করার চক্রান্ত করছে। গত চার মাসে বিভিন্ন আশ্রয়শিবিরে রোহিঙ্গাদের হাতে অন্তত ১২ জন রোহিঙ্গা খুন হয়েছেন।

আশ্রয়শিবিরে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ৮ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ বলেন, ‘মোহাম্মদ হাশিম নামের রোহিঙ্গা তরুণের ভিডিও বার্তাটি আমাদের নজরে এসেছে। ভিডিও বার্তায় ওই তরুণ যাঁদের নাম উল্লেখ করেছে, তাঁদের শনাক্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আশ্রয়শিবিরে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড প্রতিরোধ এবং শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষায় এপিবিএনের পাশাপাশি গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে।’