আশিক চৌধুরী হারিছ চৌধুরীর চাচাতো ভাই এবং কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান। গত বছরের ১১ জানুয়ারি রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ‘হারিছ চৌধুরীর মৃত্যু’র খবর জানিয়ে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে আলোচনায় আসেন আশিক চৌধুরী। তখন তিনি ফেসবুকে লিখেছিলেন, ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে করোনায় আক্রান্ত হয়ে হারিছ চৌধুরী মারা গেছেন।

কানাইঘাট উপজেলায় হারিছ চৌধুরীর বাবার নামে প্রতিষ্ঠিত শফিকুল হক চৌধুরী মেমোরিয়াল এতিমখানায় ১৭ জানুয়ারি শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে নানা বিষয়ে দীর্ঘ বক্তব্য দেন আশিক চৌধুরী। বক্তব্যের একপর্যায়ে ক্ষুব্ধ হয়ে তিনি হারিছ চৌধুরীর মেয়েকে ‘গলা টিপে হত্যা’র কথা বলেন। এ সময় হারিছ চৌধুরীর অন্য স্বজনদের নিয়েও বিষোদ্‌গার করেন তিনি। এ–সংক্রান্ত বক্তৃতার একটি ভিডিওচিত্র ইতিমধ্যে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

হারিছ চৌধুরীর ভাই কামাল চৌধুরীর ছেলে রাহাত চৌধুরী এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে আশিক চৌধুরীর বিরুদ্ধে গতকাল রাতে কানাইঘাট থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তবে আশিক চৌধুরী হত্যার হুমকির বিষয়টি কথার কথা হিসেবে বলেছেন বলে জানিয়েছেন।

কানাইঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তাজুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, এ ঘটনায় সামিরার চাচাতো ভাই রাহাত থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তবে যাঁকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে, তাঁকে (সামিরা) নিয়ে সাধারণ ডায়েরি করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে রাহাতকে। এরপরও পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করে দেখছে।

যোগাযোগ করলে আশিক চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, ‘তাইন (হারিছ চৌধুরী) মারা যাওয়ার পর থাকি তারে (সামিরা) নিয়া স্থানীয় কিছু লোক আমার বিরুদ্ধে খালি (কেবল) বিশৃঙ্খলা করছে। এর লাগি আমি মনোবল (অধিকার) রাইখা তার (সামিরা) প্রতি কিছুটা রাগ করছি। ইগু (সে) আমার মেয়ে। তাইর বাবা নাই। আমিই বাবা। তাই মনোবল নিয়া কইছি, গলা টিইপা মাইরা ফালাইমু! এটা কথার কথা।’