সমন্বয় সভার সভাপতিত্ব করেন মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির সভাপতি এম নাসের রহমান। জেলা কমিটির প্রথম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফখরুল ইসলামের সঞ্চালনায় সভায় প্রধান বক্তা ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল। বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হাসান।

আবদুল মঈন খান বলেন, ‘আমরা কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে আসিনি। কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ করি না। বিরোধী দল হিসেবে সরকারের সমালোচনা করি। এটা আমাদের ডিউটি। সারা দুনিয়ায় বিরোধী দলের ডিউটি হচ্ছে সরকারের ভুল ধরিয়ে দেওয়া। যাতে সরকার ভুল সংশোধন করে সঠিক পথে চলে।’

গণসমাবেশ প্রস্তুতি কমিটির দলনেতা ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন দলের নেতাদের উদ্দেশে বলেন, ‘আমাদের চেয়ে মাঠপর্যায়ের কর্মীরা এখন কমপক্ষে এক শ মাইল সামনে এগিয়ে আছে। আমরা তো কাউকে চার দিন আগে বরিশালে আসতে বলি নাই। কাউকে তিনদিন আগে আসতে বলি নাই। ভেলায় পাড়ি দিয়ে তাঁবু নিয়ে চাল–ডাল–তরকারি নিয়ে আসতে বলি নাই। মনের তাগিদে তারা এসেছে। গণতন্ত্র ও ভোটাধিকার, আইনের শাসন ফিরিয়ে আনতে এসেছে। তৃণমূলের নেতা-কর্মী ও সাধারণ মানুষ অনেকে সামনে এগিয়ে আসছে। সুতরাং আমরা যারা নেতৃত্বে আছি। আমরা যেন সতর্ক হই। যারা যেখানে দায়িত্বে আছে, তা সঠিকভাবে পালন করতে হবে।’

গণসমাবেশ প্রস্তুত কমিটির সমন্বয়কারী ও বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হাসান বলেন, সরকারের শত বাধা উপেক্ষা করে সারা দেশে বিএনপির গণসমাবেশে মানুষ ট্রেনে, নৌপথে, পায়ে হেঁটে উপস্থিত থেকে সরকারের গদি কাঁপিয়ে দিচ্ছে। সিলেটের সমাবেশেও মৌলভীবাজারের পক্ষ থেকে এভাবে দলে দলে যোগ দিয়ে মহাসমাবেশের রূপ দিতে হবে।