এর আগে গত বুধবার ঢাকা থেকে সিলেটে আসেন মহিউদ্দিন রনি। প্রচারপত্র বিলি করার সময় যাত্রীদের উদ্দেশে মহিউদ্দিন বলেন, ট্রেনে কেউ যাত্রী হয়রানি বা ভোগান্তির শিকার হলে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরে অভিযোগ করতে পারেন।

কেউ অভিযোগ করে ফল না পেলে তাঁকে ই–মেইল করারও আহ্বান জানান রনি। তিনি আরও বলেন, ‘অভিযোগ করার পর প্রয়োজনে আমাকে ফোন দেবেন। আমি হয়রানির শিকার যাত্রীদের পক্ষে থেকে কাজ করব। সবাইকে অব্যবস্থাপনা এবং দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে। আমরা দুর্নীতিমুক্ত ও অব্যবস্থাপনামুক্ত রেলওয়ে স্টেশন দেখতে চাই।’

সিলেট রেলওয়ে স্টেশনে তেমন কোনো অব্যবস্থাপনা লক্ষ করেননি উল্লেখ করে মহিউদ্দিন রনি বলেন, সিলেট রেলওয়ে স্টেশনে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শৃঙ্খলা ও দায়িত্বে অবহেলা করতে দেখা যায়নি। তবে বাড়তি দামে টিকিট বিক্রি করার চেষ্টাকালে একজনকে স্টেশন কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সিলেট স্টেশনের ব্যবস্থাপক মো. নুরুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘এ স্টেশনে কোনো দুর্নীতি বা টিকিট কালোবাজারির ঘটনা নেই। সব কর্মকর্তা-কর্মচারী সুশৃঙ্খলভাবে দায়িত্ব পালন করছেন।’

টিকিটের বেশি দাম চাওয়ায় একজনকে আটক করার বিষয়ে জানতে চাইলে নুরুল ইসলাম বলেন, ‘শুনেছি এক যাত্রী যাত্রা বাতিল করে টিকিট কাউন্টারে ফেরত দিতে গিয়েছিলেন। কিন্তু নিয়ম অনুযায়ী যাত্রার আগমুহূর্তে কেউ টিকিট বাতিল করলে টাকা ফেরত পাবেন না। সেটি জানানোর পর ওই ব্যক্তি স্টেশনের সামনে যাত্রীদের কাছে টিকিট বিক্রি করতে চাচ্ছিলেন। ৩২০ টাকার টিকিটে বাড়তি দাম চাওয়ার অভিযোগে কয়েকজন তরুণ তাঁকে আটক করে স্টেশনমাস্টারের কাছে হস্তান্তর করেছেন বলে শুনেছি।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন