খাদিজাদের বাড়ি টাঙ্গাইলের সদর উপজেলার নাগরপুর গ্রামে। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। তাঁর বাবা জাকির হোসেন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত। দুই বোনের মধ্যে খাদিজা বড়।

জাকির হোসেন বলেন, তিনি মেয়েটাকে বাঁচাতে চান। এ জন্য তিনি তাঁর জমিজমা বিক্রির প্রস্তুতি নিয়েছেন। ভারতের বেঙ্গালুরুতে একটি হাসপাতালে চিকিৎসা করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তাঁরা ভিসার জন্য আবেদনও করেছেন। কিন্তু চিকিৎসার সব টাকা তাঁর পক্ষে জোগাড় করা সম্ভব নয়। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-উপদেষ্টা তারেক নূরের সঙ্গে কথা হয়েছে তাঁর। তিনি চিকিৎসার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাহায্য করতে চেয়েছেন। খাদিজার বিভাগেও কথা হয়েছে। তাঁরা সাহায্য করবেন। পাশাপাশি সমাজের বিত্তবান ব্যক্তিরা এগিয়ে এলে খুব উপকার হবে।

ছাত্র-উপদেষ্টা তারেক নূর বলেন, অসুস্থ হওয়ার পর থেকেই খাদিজার চিকিৎসার সঙ্গে তাঁরা আছেন। তাঁরাই রাজশাহী থেকে ঢাকায় পাঠিয়েছেন। সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। তাঁর চিকিৎসায় অনেক টাকার প্রয়োজন। তাঁরা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাধ্যমতো সহযোগিতা করবেন।

খাদিজার সহপাঠী মার্জিয়াতুন নাহার প্রথম আলোকে বলেন, বিশ্বাসই হচ্ছে না খাদিজা এত বড় রোগে আক্রান্ত। চিকিৎসার খরচের জন্য দুই দিন ধরে তাঁরা রাজশাহী নগরের বিভিন্ন এলাকায় ভাগ হয়ে টাকা তুলছেন। পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন বিভাগ, আবাসিক হলে যাওয়া হবে। এ ছাড়া তাঁরা একটি কনসার্টেরও আয়োজন করার চেষ্টা চালাচ্ছেন। তাঁরা তাঁদের সহপাঠীকে বাঁচাতে চান।

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. শরিফুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, খাদিজা শিক্ষার্থী হিসেবে খুবই ভালো। তাঁর চিকিৎসার জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন। তাঁদের বিভাগটি নতুন। শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা চেষ্টা করছেন। এ বিষয়ে দেশের হৃদয়বান ব্যক্তিরা এগিয়ে এলে চিকিৎসাটা শুরু করা যাবে। তাঁরা চান, খাদিজা আবার সুস্থ হয়ে পড়ালেখা শুরু করুক।

সহযোগিতা পাঠানোর ঠিকানা
মোহাম্মদ জাকির হোসেন, ডিবিবিএল শিমরাইল শাখা, অ্যাকাউন্ট নম্বর- ১২৮-১০১-১২৩১৮০। বিকাশ ও নগদ নম্বর ০১৭১৫১৩০৬১৪।