ঈদ উপলক্ষে যাত্রীদের ব্যাপক চাপ থাকায় আজ আটটি লঞ্চের ব্যবস্থা করা হয়। এ ছাড়া লঞ্চগুলোতে অতিরিক্ত যাত্রী এড়াতে টার্মিনালে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নজরদারি রয়েছে। যাত্রী ভরে গেলেই নির্ধারিত সময়ের আগে লঞ্চগুলো টার্মিনাল থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

ডেকের অনেক যাত্রী আজ সকাল থেকেই লঞ্চে ওঠেন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রীর সংখ্যা বাড়তে থাকে। লঞ্চঘাটে গিয়ে দেখা যায়, বিকেল সাড়ে পাঁচটা থেকে লঞ্চগুলো ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়ার কথা। তবে বেলা তিনটা থেকেই যাত্রীবোঝাই লঞ্চগুলো টার্মিনাল ত্যাগ করে।

পটুয়াখালীর আউলিয়াপুর এলাকার ছালাম আকন ঢাকায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। পদ্মা সেতু দেখার জন্য ঈদুল আজহার ছুটিতে বাসে করে বাড়িতে এসেছিলেন। শনিবার তাঁকে কাজে যোগ দিতে হবে। ছালাম বলেন, লঞ্চে করে ঢাকায় ফিরছেন। লঞ্চই তাঁদের কাছে আরামদায়ক। কিন্তু ঈদ উপলক্ষে ভাড়া বেশি নিচ্ছে।

পটুয়াখালী নদীবন্দরের উপপরিচালক মো. মামুন-অর-রশিদ বলেন, ‘আজ শুক্রবার ও কাল শনিবার যাত্রীদের চাপ বাড়বে, এই চিন্তা করে আমরা আগে থেকেই প্রস্তুতি নিয়েছি। আজ মোট আটটি লঞ্চ ঢাকার উদ্দেশে পটুয়াখালী লঞ্চঘাট ছেড়ে গেছে। ঝুঁকি এড়াতে যাত্রীবোঝাই হয়ে গেলেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তা নিয়ে লঞ্চগুলো নির্ধারিত সময়ের আগে ঘাট ত্যাগ করতে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন