মিরাট উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মমতাজ উদ্দিন বলেন, মাত্র দেড় বছর আগে রাস্তাটি তৈরি করা হয়। পুকুরপাড়ে শুধু কয়েকটি খুঁটির সঙ্গে ইটের গাঁথুনির ওপর ঢালাই দিয়ে নির্মাণ করা হয় রাস্তাটি। নির্মাণের প্রায় চার মাস পরই ইটের গাঁথুনি আর খুঁটি পুকুরে বিলীন হয়ে যাওয়ার কারণে রাস্তাটির চার ভাগের তিন ভাগই পুকুরে চলে গেছে। যে পরিমাণ রাস্তা এখনো ভালো আছে, সেটি দিয়ে কোনো রকমে হেঁটে চলাচল করা যায়। শুষ্ক মৌসুমে কোনোমতে চলাচল করা গেলেও বর্ষা মৌসুমে পা পিছলে পুকুরের মধ্যে পড়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটে। সাইকেল নিয়ে চলাচল করতে গিয়ে অনেক শিক্ষার্থী দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে। তাই দ্রুত স্থায়ীভাবে রাস্তাটি মেরামত করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছেন।

রানীনগর উপজেলা প্রকৌশলী মো. ইসমাইল হোসেন বলেন, উপজেলাতে একেবারে নতুন এসেছেন তিনি। সরেজমিন করে দ্রুত রাস্তাটি মেরামত করার চেষ্টা করবেন।