অনুষ্ঠানের উদ্বোধন ঘোষণা করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ বিভূতি ভূষণ দেবনাথ বলেন, ‘প্রথম আলো গণিত উৎসবের পাশাপাশি অসংখ্য সামাজিক কাজকর্ম করে যাচ্ছে। গণিত উৎসব বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের স্বপ্ন দেখাচ্ছে। এই ব্যতিক্রমী ও সুন্দর কাজটি প্রথম আলো শুরু থেকেই করে যাচ্ছে। গণিত হচ্ছে মাদার অব সায়েন্স।’ তিনি আরও বলেন, ‘গণিত জীবনের একটি অপরিহার্য অংশ। গণিত ছাড়া আমাদের জীবন একেবারেই চলে না। পাশাপাশি আমাদের রয়েছে গণিতভীতি। এ কারণে দেখা যায়, গণিতে প্রতিবছর অনেক শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হচ্ছে। গণিত আসলে ভয়ের কোনো বিষয় নয়। গণিত যুক্তিনির্ভর একটি বিষয়। এই যুক্তির জন্যই আমাদের গণিত শিখতে হবে, জীবনে চর্চা করতে হবে।’

উদ্বোধনের পর আজ সকাল ১০টা থেকে কলেজের তিনটি কক্ষে গণিতের পরীক্ষা শুরু হয়। পরীক্ষার পর ব্রাহ্মণবাড়িয়া বন্ধুসভার সদস্যদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পর থাকবে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন বিষয়ে প্রশ্নোত্তর পর্ব। পাশাপাশি চলবে খাতা মূল্যায়নের কাজ।

শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেবেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের উপাধ্যক্ষ হামজা মাহমুদ, গণিত বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আবদুল কুদ্দুস, মোহাম্মদ কামাল হোসেন ও সহকারী অধ্যাপক শফিকুল ইসলাম, রসায়নের সহকারী অধ্যাপক আবদুল খালেক, পদার্থবিজ্ঞানের সহকারী অধ্যাপক হাবিবুর রহমান ও চিনাইর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব অনার্স কলেজের গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক হরিপদ সাহা। খাতা মূল্যায়ন শেষ হলে শেষে পুরস্কার বিতরণ করা হবে।