শিশুটির নাম মরিয়ম আক্তার (৫)। আহত তার বাবা আজিজার রহমান ও মা আয়েশা বেগমকে স্থানীয় ব্যক্তিরা উদ্ধার করে প্রথমে তারাগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেন। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাঁদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তারাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা নীল রতন দেব প্রথম আলোকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মোটরসাইকেল থেকে বাবা–মা–শিশুকন্যা তিনজনই ছিটকে পড়েন। ঘটনাস্থলে শিশু মরিয়ম নিহত হয়।

পুলিশ ও স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তারাগঞ্জ উপজেলার দোয়ালীপাড়া গ্রামের বাসিন্দা আজিজার রহমান তাঁর স্ত্রী ও শিশুকন্যাকে নিয়ে উপজেলার ইকরচালী ইউনিয়নের চরকডাঙ্গা ডাঙ্গাপাড়ায় শ্বশুরবাড়িতে গিয়েছিলেন। সেখানে দাওয়াত খেয়ে বুধবার রাতে মোটরসাইকেলে নিজ বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেন। পথে রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কের বালাপাড়া মোড়ে পৌঁছালে একটি প্রাইভেট কার মোটরসাইকেলটিকে সামনে থেকে ধাক্কায় দেয়। এতে মোটরসাইকেল থেকে তিনজনই ছিটকে পড়েন। ঘটনাস্থলে শিশু মরিয়ম নিহত হয়। আহত আজিজার রহমান ও আয়েশা বেগমকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

তারাগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মো. মাহবুব মোরশেদ বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত শিশুটির মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে ওই প্রাইভেট কার ও তার চালককে আটক করা সম্ভব হয়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন