ট্রলারের মাঝি বিল্লাল হোসেন বলেন, তিনি প্রায় ২০ বছর ধরে সাগরে মাছ ধরছেন। তবে কখনো শাপলাপাতা মাছ পাননি। সাগর থেকে জাল তোলার পর বিশাল আকৃতির শাপলাপাতা মাছ দেখে তিনি অবাক হয়ে যান।

হাতিয়া উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. খোরশেদ আলম বলেন, বন্য প্রাণী আইন অনুসারে শাপলাপাতা মাছ ধরার ব্যাপারে কিছু কিছু এলাকায় নিষেধাজ্ঞা আছে। তবে মাছটি নির্দিষ্ট কোন এলাকা থেকে ধরা হয়েছে, সেটা না জেনে বলা যাচ্ছে না।

এর আগে দেশের বিভিন্ন স্থানে শাপলাপাতা মাছ ধরা ও বিক্রির দায়ে জেলে ও মাছ বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে বন বিভাগ, প্রশাসন ও কোস্টগার্ড। এসব ঘটনায় অর্থদণ্ড ও কারাদণ্ড দিতে দেখা গেছে। ওয়াইল্ডলাইফ কনজারভেশন সোসাইটির (ডব্লিউসিএস) তথ্যানুযায়ী, শাপলাপাতার ১৬টির মতো প্রজাতি আছে। বাংলাদেশে যে ৮ থেকে ১০ প্রজাতির শাপলাপাতা পাওয়া যায়, এর মধ্যে ২টি প্রজাতি মহাসংকটাপন্ন ও ৩টি সংকটাপন্ন। পীতাম্বরী বা নাঙলা ও ঘণ্টি শাপলাপাতাকে মহাসংকটাপন্ন ঘোষণা করা হয়েছে। পান্ন্যা, শিংচোয়াইন ও ঠোট্ট্যা ঘাপরি শাপলাপাতাকে সংকটাপন্ন হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। এ ছাড়া আছে চিত্রা হাউশ শাপলাপাতা, ছোটলেজি শাপলাপাতা, কালি শাপলাপাতা, ফুল শাপলাপাতা, বাদুড় শাপলাপাতা, বাদা শাপলাপাতা, থাইন ও চুনি প্রজাতি। এর কয়েকটি প্রজাতির বিক্রি নিষিদ্ধ।