শাহীন ইসলাম বলেন, প্রায় ১০ মাস আগে হাসপাতালে যোগদান করা পরিচালক শরিফুল হাসান দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে নানা অজুহাতে কর্মচারীদের অসহযোগিতা করছেন। পরিচালকের কোনো অনিয়ম ও অন্যায়ের প্রতিবাদ করলেই কর্মচারীদের বদলি করার হুমকি দেন তিনি হয়। ইতিমধ্যে অনেককে বদলিও হতে হয়েছে।

কর্মচারীদের বিক্ষোভের সময় হাসপাতালের পরিচালক শরিফুল হাসান উপস্থিত ছিলেন না। তাঁর বিরুদ্ধে কর্মচারীদের আনা অভিযোগ সত্য নয় বলে দাবি করেন তিনি। শরিফুল হাসান মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমি নিয়মতান্ত্রিকভাবে বিভিন্ন কাজের দরপত্র করেছি। এটি অনেকের হয়তো পছন্দ হয়নি। সেই সঙ্গে আমি এখানে যোগদানের পর স্বচ্ছতার ভিত্তিতে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি।’