প্রত্যক্ষদর্শী মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে দুটি বালুভর্তি ডাম্প ট্রাক বেপরোয়া গতিতে গোরকঘাটা সদরের দিকে যাচ্ছিল। এর মধ্যে একটি শিশু তাহমিদকে চাপা দেয়। পরে তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে মহেশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাৎক্ষণিকভাবে চিকিৎসকদের পরামর্শে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। বেলা ১১টার দিকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে সেখানকার চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

দুর্ঘটনার পরই স্থানীয় লোকজন গোরকঘাটা-কালারমারছড়া সড়কে নেমে বিক্ষোভ শুরু করেন। এ সময় ওই সড়কে অন্তত এক ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ ছিল। পরে খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ ইয়াছিন ও মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রণব চৌধুরী ঘটনাস্থলে এসে স্থানীয় লোকজনকে বুঝিয়ে সড়কের ওপর থেকে সরিয়ে দেন।

জানতে চাইলে ওসি প্রণব চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, ডাম্প ট্রাকটি জব্দ করা হয়েছে। আর চালককে ধরার জন্য পুলিশ চেষ্টা করছে। তবে সড়ক দুর্ঘটনার পর স্থানীয় লোকজন সড়ক অবরোধ করে রেখেছিলেন। পরে পুলিশ ও প্রশাসন ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। এখন ওই সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন