ওই বাড়ি নিতীশ রঞ্জন ঘোষ ওরফে নিকো রানা (৩৮) নামের এক ব্যক্তি ভাড়া নিয়ে বসবাস করেন। নিতীশ রঞ্জন ফরিদপুর সদরের ঈশান গোপালপুর ইউনিয়নের বিষ্ণুপুর এলাকার নির্মলেন্দু ঘোষের ছেলে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে নিতীশ পালিয়ে যান। ফলে অস্ত্র উদ্ধার হলেও তাঁকে গ্রেপ্তার করা যায়নি।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) রাহুল অনিক প্রথম আলোকে বলেন, নিতীশ রঞ্জন ঘোষের বিরুদ্ধে ফরিদপুর কোতোয়ালি থানায় পাসপোর্টের দালালির অভিযোগে একটি মামলা রয়েছে। এ মামলায় তিনি পলাতক। তাঁকে গ্রেপ্তারের জন্য শহরের কমলাপুরে তাঁর বাড়িতে এ অভিযান চালানো হয়। তবে নিতীশকে পাওয়া না গেলেও গুলি, ম্যাগাজিনসহ দুটি বিদেশি পিস্তল পাওয়া গেছে। পিস্তল দুটির একটি ইতালি, অপরটি যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি। তিনি বলেন, অভিযানকালে পাওয়া ৫৩টি গুলির ৫০টি টু টু বোর, দুটি সেভেন পয়েন্ট ফাইভ ও একটি নাইন এমএম।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মামুনুর রশীদ, নিতীশের ভাড়া করা বাড়িতে ঘরের শয়নকক্ষের খাটের নিচে পেঁয়াজ, রসুনসহ বিভিন্ন সামগ্রীর মধ্যে একটি পলিথিনের ব্যাগ থেকে অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করা হয়। সেখানে তিনি এসব লুকিয়ে রেখেছিলেন। নিতীশকে গ্রেপ্তারে পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে।

ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এম এ জলিল বলেন, এ ঘটনায় ডিবির এসআই রাহুল অনিক বাদী হয়ে নিতীশ রঞ্জন ঘোষকে একমাত্র আসামি করে অস্ত্র আইনে একটি মামলা করেছেন। মামলাটির তদন্ত করবেন ডিবির এসআই হাফিজুর রহমান।