রাতে প্রথম আলোকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন এপিবিএনের ওই ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক ও অতিরিক্ত উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মোহাম্মদ হাসান বারী নুর।

গ্রেপ্তার চারজন হলেন টেকনাফ উপজেলার হ্নীলার জাদিমোরা শালবাগান রোহিঙ্গা আশ্রয়শিবিরে ডি-১ ব্লকের মৃত মো. আমিনের ছেলে সালামত উল্লাহ (৪০), মৃত সমশু আলমের ছেলে নজিমুল্লাহ (২০), সৈয়দ কাসিমের ছেলে ওয়াসিউর রহমান (৩৫) এবং উমর মিয়ার ছেলে নুর আলম (৩০)।

এপিবিএন সূত্র জানায়, সকালে শালবাগান পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা গোপনে খবর পান, মালয়েশিয়া পাচারের জন্য কয়েকজন রোহিঙ্গা তরুণীকে একটি জায়গায় জড়ো করা হয়েছে। এরপর শালবাগান আশ্রয়শিবিরে ডি-১ ব্লকের রোহিঙ্গা অসিউর রহমানের ঘরে অভিযান চালিয়ে পাঁচ রোহিঙ্গা তরুণী ও পাচারের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে চার রোহিঙ্গাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

উদ্ধার করা তরুণীদের বরাত দিয়ে ১৬ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইবনে মিজান বলেন, সমুদ্রপথে ট্রলারে মালয়েশিয়ায় পাঠানোর কথা বলে দালালচক্র ওই পাঁচ তরুণীকে অসিউর রহমানের ঘরে জড়ো করে। গ্রেপ্তার চারজনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

জানতে চাইলে টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. হাফিজুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, উদ্ধার করা রোহিঙ্গা তরুণীদের ও গ্রেপ্তার চার রোহিঙ্গাকে আগামীকাল রোববার কক্সবাজার আদালতে পাঠানো হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন