গ্রেপ্তার
প্রতীকী ছবি

অবরোধ উপলক্ষে মিছিল শেষে সড়কে টায়ারে অগ্নিসংযোগের সময় নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে জামায়াতের আটক ১৬ জামায়াত নেতা–কর্মীসহ দলটির ২১ জনের বিরুদ্ধে নাশকতার মামলা করেছে পুলিশ। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) শংকর দাস বাদী হয়ে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে মামলাটি করেন। মামলায় অজ্ঞাত আরও অনেককে আসামি করা হয়েছে। এই মামলায় দলের আটক সবাইকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

গতকাল সকালে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের পাঠানটুলী এলাকায় মিছিল শেষে সড়কে টায়ারে অগ্নিসংযোগ করার সময় স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা–কর্মীদের সহায়তায় জামায়াতের ১৬ নেতা–কর্মীকে আটক করে পুলিশ। তাঁরা হলেন মোহাম্মদ মমিন, আনোয়ার হোসেন, এ কে এমন নুরুল্লাহ, মাইনুদ্দিন, আবদুস সাত্তার, শামীম আহমেদ, মোহাম্মদ আফাজ উদ্দিন, বেলায়েত, মোহাম্মদ আ. কাশেম, মো. জামান, মো. হাসান, হাবিবুর রহমান, সোহেল রানা, মোতাসিম মামুন, মো. মামুন ও রুবেল রানা।

গ্রেপ্তার আসামি ছাড়াও মামলায় আসামি করা হয়েছে জেলা জামায়াতে ইসলামের সদস্য জয়নাল আবেদীন ফারুক, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা জামায়াতের সাবেক সভাপতি বশীর উল্লাহ, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা জামায়াতে ইসলামের আমির জাকির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল হুজাইফা ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা জামায়াতের রুকন আবদুল বাকিকে।

মামলার এজাহারে বাদী উল্লেখ করেন, অবরোধ সমর্থনে মিছিল শেষে সড়কে টায়ারে অগ্নিসংযোগ করার সময় স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা–কর্মীদের সহায়তায় আসামিদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তার আসামিরা ছাড়াও মামলার অন্য আসামিরা নাশকতার উদ্দেশে সেখানে জড়ো হন। ঘটনাস্থল থেকে তিনটি অবিস্ফোরিত ককটেলের অংশবিশেষ, ১৩টি বাঁশের লাঠি, ৪টি রড, ১টি আগুনে পোড়া গোলাকার টায়ার, কয়েক টুকরা বাসের ভাঙা কাচ জব্দ করা হয়েছে।

মামলার বিষয়টি স্বীকার করে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফা প্রথম আলোকে বলেন, অবরোধে নাশকতা করার সময় গ্রেপ্তার জামায়াতের ১৬ নেতা–কর্মীসহ ২১ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও অনেককে আসামি করে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে মামলা করা হয়েছে।