ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, পারুল দীর্ঘদিন ধরে মানসিকভাবে অসুস্থ ছিলেন। তাঁর বাবা পক্ষাঘাতগ্রস্ত। গতকাল শুক্রবার বিকেলে তাঁর মা স্বামীর জন্য ওষুধ কিনে আনতে স্থানীয় একটি দোকানে যান। বাড়ি ফিরে দেখেন, পারুল ঘরে নেই। এরপর বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও তাঁর সন্ধান মেলেনি।

আজ বিকেলে বাড়ির কাছে পরিত্যক্ত গভীর কুয়ায় তাঁর লাশ ভাসতে দেখা যায়। খবর পেয়ে বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে কুলাউড়া ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা গিয়ে কুয়া থেকে তাঁর লাশ তুলে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেন।

জুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সঞ্জয় চক্রবর্তী রাত আটটার দিকে মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, পারুল মানসিক রোগী বলে স্বজনেরা জানিয়েছেন। কোনোভাবে কুয়ায় পড়ে গিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। স্বজনদের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ না পাওয়ায় একটি সাধারণ ডায়েরি মূলে বিনা ময়নাতদন্তে লাশ হস্তান্তর করা হয়ে গেছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন