মারা যাওয়া ব্যক্তির নাম শাহা জামাল (৬৫)। তিনি ফুলকোচা এলাকার পূর্ব পাড়া গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন। তাঁর ছেলে মো. আজাদ মিয়া ইউপি নির্বাচনে ২ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ ইউপি সদস্য পদে তালা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন। নির্বাচনে তিনি ২৩ ভোটে পরাজিত হয়েছেন।

স্থানীয় ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে, বুধবার ফুলকোচা ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন হয়েছে। শুরু থেকে মো. আজাদ মিয়ার বাবা শাহা জামাল নির্বাচনী  প্রচার-প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন। প্রতিটি গ্রামের ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তিনি ছেলের জন্য ভোট চেয়েছেন।

ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডে মো. আজাদ মিয়াসহ আরও পাঁচজন নির্বাচনে অংশ নেন। সকাল আটটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট গ্রহণ করা হয়েছে। শাহা জামালের ছেলে আজাদ মিয়া তালা প্রতীক নিয়ে ২৭৮ ভোট পান। কিন্তু তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মো.শহিদুল্লাহ টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে ৩০১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। মাত্র ২৩ ভোটে তাঁর ছেলে মো. আজাদ পরাজিত হন। এ খবর শুনে নিজ বাড়িতে শাহা জামাল মারা যান।

শাহা জামালের ছেলে মো. আজাদ মিয়া মুঠোফোন বলেন, ‘নির্বাচনের শুরু থেকে বাবা দিন-রাতে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছেন। মানুষের কাছে আমার জন্য ভোট চেয়েছেন। অনেক পরিশ্রম করেছেন। আমার পরাজয়ের খবরটি শুনেই বাবা স্ট্রোক করে মারা যান। বাবা আমার পরাজয়ের খবরে অনেক বেশি কষ্ট পেয়েছিলেন।’ পরে তিনি তাঁর বাবার জন্য সবার কাছে দোয়া চান।