বক্তারা বলেন, গত ২২ অক্টোবর দলীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এরপর জেলার নেতাদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ২৯ অক্টোবর আতিকুজ্জামানকে সভাপতি ও ফজলে রাব্বিকে সাধারণ সম্পাদক করে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। নবগঠিত কমিটিতে যাঁদের পদ দেওয়া হয়েছে তাঁদের প্রতি দলের নেতা-কর্মীদের সমর্থন নেই। তাঁদের কর্মকাণ্ডের কারণে দলের নেতা-কর্মীরা তাঁদের আগেই প্রত্যাখ্যান করেছেন।

বক্তারা বলেন, ২০১৪ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত তাঁরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দায়িত্বে থাকলেও, কখনো দলীয় নেতা-কর্মীদের সঙ্গে ছিলেন না। তাঁরা বিএনপি ও জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মীদের প্রাধান্য দিতেন। সম্প্রতি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) ও পৌরসভার নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের বিরোধিতা করার অভিযোগে তাঁদের দল থেকে বহিষ্কারও করা হয়েছিল। এত অভিযোগ থাকার পরও জেলার নেতারা রহস্যজনক কারণে তাঁদের নিয়েই নতুন কমিটি ঘোষণা করেছেন।

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নবগঠিত কমিটির সভাপতি আতিকুজ্জামান বলেন, ‘তাঁদের অভিযোগের কোনো সত্যতা নেই। বিএনপির একটি চক্র তাঁদের দিয়ে এসব করাচ্ছেন। আমরা যোগ্য বলেই,  জেলা থেকে আমাদের কমিটিতে রেখেছেন। তাঁরা কমিটিতে আসতে না পারায় এসব অভিযোগ করছেন।’