বিএনপি সূত্রে জানা যায়, রোববার সন্ধ্যায় বিএনপির কেন্দ্রীয় সহদপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিশ্বনাথ উপজেলা বিএনপির সভাপতি জালাল উদ্দিনকে দলের প্রাথমিক সদস্য পদসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কারের বিষয়টি জানানো হয়। এর আগে বিকেলে দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে জালাল উদ্দিনকে বহিষ্কারের বিষয়টি চিঠিতে জানিয়েছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির বিশ্বনাথ উপজেলার এক নেতা বলেন, বিএনপি যেখানে বর্তমান নির্বাচন কমিশন ও সরকারের অধীন কোনো নির্বাচনে যাবে ঘোষণা দিয়ে আন্দোলন করছে, তখন জালাল উদ্দিন প্রার্থী হয়েছেন। এ জন্যই তাঁকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

এদিকে ১৬ অক্টোবর উপজেলা বিএনপির সভাপতি পদ থেকে অব্যাহতি চেয়ে বিশ্বনাথ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী হন জালাল উদ্দিন। দল থেকে বহিষ্কার এড়াতে তিনি আগেভাগেই শারীরিক অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে দলীয় পদ থেকে পদত্যাগের আবেদন করেছেন বলে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় নেতা-কর্মীরা। আগামী ২ নভেম্বর বিশ্বনাথ পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এ বিষয়ে জালাল উদ্দিন রোববার রাত পৌনে ৯টার দিকে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমি আগেই অব্যাহতি চেয়ে জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বরাবর আবেদন করেছি। তবে দল থেকে বহিষ্কারের বিষয়টি আমার জানা নেই।’