পুলিশ ও কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, বেড়া উপজেলার আমিনপুর থানার দুর্গাপুর গ্রাম থেকে চালকসহ ছয়জন একটি অটোভ্যানে সাঁথিয়ার কোড়িয়াল গ্রামে দাওয়াত খেতে এসেছিলেন। দাওয়াত খাওয়া শেষে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার আগে তাঁরা আবার ওই অটোভ্যানে করে বাড়ির উদ্দেশে রওনা হন। অটোভ্যানটি চালাচ্ছিলেন দুর্গাপুর গ্রামের আবু সাঈদ (৫৫) নামের এক ব্যক্তি।

সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে অটোভ্যানটি বেঙ্গলমিট এলাকার পাশের রাস্তা থেকে মহাসড়কে উঠা মাত্রই সি-লাইন নামের একটি যাত্রীবাহী কোচ সেটিকে চাপা দেয়। এতে অটোভ্যানের ছয় যাত্রীই গুরুতর আহত হন। আহত ব্যক্তিদের স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে পাবনা সদর হাসপাতালে পাঠানোর পথে রাস্তায় ভ্যানচালক আবু সাঈদ ও তাঁর ছেলে তাওহিদ (৪) মারা যান। পরে পাবনা সদর হাসপাতালে একই গ্রামের আমির হামজার মেয়ে রোজা (৫) মারা যায়। বাকি তিনজন পাবনা সদর হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা ঘটনাস্থলে যাওয়ার আগেই আহত ব্যক্তিদের পাবনা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। ঘটনাস্থলে গিয়ে এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছে আমরা জানতে পারি, একটি বাসের চাপায় দুর্ঘটনাটি ঘটে। খোঁজ নিয়ে আমরা নিহত তিনজনের নাম জানতে পেরেছি। বাকি তিনজন আশঙ্কাজনক অবস্থায় পাবনা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। আহত ব্যক্তিদের পরিচয় এখনো আমরা পাইনি। ঘাতক বাসটি দ্রুত পালিয়ে যাওয়ায় সেটির নম্বরও শনাক্ত করা যায়নি।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন