কারাগারে যাওয়া নেতারা হলেন গাবতলী উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোরশেদ মিলটন, বিএনপি নেতা ফজলে রাব্বি এবং গাবতলী পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হারুনুর রশিদ। তাঁরা তিনজনই এত দিন হাইকোর্টের অন্তর্বর্তীকালীন জামিনে ছিলেন।

৩১ মে গাবতলী পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজিজার রহমান পাইকার বাদী হয়ে ৪৩৩ জনের বিরুদ্ধে গাবতলী মডেল থানায় মামলা করেন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত ২৭ মে গাবতলী উপজেলা বিএনপির সম্মেলনে গাবতলী উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও বগুড়া জেলা মহিলা দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুরাইয়া জেরিন প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি করেন বলে অভিযোগ ওঠে। এর প্রতিবাদে ২৯ মে দুপুর ১২টার দিকে গাবতলী উপজেলা আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ মিছিল বের করে। মিছিলে হামলার অভিযোগে আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগ পরে বিএনপি-যুবদলের নেতাদের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে হামলা করে। পরে আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে বিএনপি-যুবদল-ছাত্রদলের সংঘর্ষ বাধে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে মিছিলে গুলি এবং লাঠিপেটা করে। এতে বিএনপি-যুবদলের চার নেতা গুলিবিদ্ধসহ উভয় পক্ষের প্রায় ২০ জন আহত হন।

এ ঘটনায় ৩১ মে গাবতলী পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজিজার রহমান পাইকার বাদী হয়ে ৪৩৩ জনের বিরুদ্ধে গাবতলী মডেল থানায় হামলা, ভাঙচুর এবং বিস্ফোরক আইনের ধারায় মামলা করেন। এতে উপজেলা বিএনপির সভাপতি মোরশেদ মিলটনকে প্রধান আসামিসহ ১৩৩ জনের নাম উল্লেখ এবং ৩০০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন