আটক জেলেরা হলেন ট্রলারের মাঝি হরলাল দাস (৫০), ব্রিটিশ দাস (৪৮), পংকজ দাস (২৬), রাজা দাস (২২), স্বপন দাস (৪৮), জগবন্ধু দাস (৬২), আপন দাস (৬০), হৃদয় দাস (২৭), দীপক দাস (৩০), সুনীল দাস (৪৭), জয় হরি দাস (৪৫), সত্যলাল দাস (২৫), গোপাল পাল (৩৯), হরিদাস (৩২), সমর দাস (৫০) ও রণজিৎ দে (২৪)। তাঁদের সবার বাড়ি ভারতের পশ্চিমবঙ্গে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মাছ ধরার ভারতীয় ট্রলারটি বাংলাদেশের জলসীমার ৩৫ কিলোমিটার ভেতরে ঢুকে মাছ ধরছিল। নৌবাহিনীর জাহাজ বিএনএস গোমতীর অধিনায়ক কমান্ডার মো. আরিফ হোসেনের নেতৃত্বে নৌবাহিনীর একটি টহল দল ভারতীয় ট্রলার জব্দের সঙ্গে সঙ্গে জেলেদের আটক করে।

default-image

বালিয়াতলী নৌ পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক মো. মমিনুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, বঙ্গোপসাগরে ৬৫ দিনের অবরোধ চলছে। ভারতীয় ট্রলারটি নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে বাংলাদেশের সমুদ্রসীমায় ঢুকে মাছ ধরছিল। এ সময় বঙ্গোপসাগরে টহলরত নৌবাহিনীর একটি দল তাঁদের আটক করতে সক্ষম হয়।

মমিনুর রহমান আরও বলেন, বাংলাদেশের জলসীমায় অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে আটক জেলেদের বিরুদ্ধে মৎস্য সংরক্ষণ আইনের ১৯৮৩ সালের ২২ (ক) ধারায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। রাতের মধ্যে জব্দ করা ট্রলারটিসহ আটক জেলেদের কলাপাড়া থানা-পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন