বেলা পৌনে ১১টার দিকে বন্ধুসভার সদস্যদের জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় উৎসবের মূল আয়োজন। শুরুতে আনন্দলোকে মঙ্গলালোকে রবীন্দ্রসংগীতের মধ্য দিয়ে কৃতী শিক্ষার্থীরা মঙ্গলপ্রদীপ প্রজ্বালন করে। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন প্রথম আলোর ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি মজিবর রহমান খান। এরপর শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য দেন মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর রংপুরের সাবেক উপপরিচালক মো. আখতারুজ্জামান, ইকো পাঠশালা অ্যান্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা মুহম্মদ শহীদ উজ জামান, ইকো পাঠশালা অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ সেলিমা আখতার, প্রথম আলোর এডিটর, রিজিওনাল নিউজ তুহিন সাইফুল্লাহ প্রমুখ।

মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘আজ থেকে ১০ বছর পর এই শিক্ষার্থীরাই সম্মিলিতভাবে দেশ সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবে। শুধু তোমাদের নিজেদের এলাকার কিংবা দেশের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করলেই চলবে না, উন্নত দেশের তোমাদের বয়সী শিক্ষার্থীদের সঙ্গেও প্রতিযোগিতা করতে হবে। কারণ, এখন গোটা বিশ্ব হাতের মুঠোয়। এই বিশ্বকে নেতৃত্ব দিতে তোমাদের সঠিকভাবে গড়ে উঠতে হবে। তোমাদের শুধু একাডেমিক শিক্ষায় শিক্ষিত হলে চলবে না। এর পাশাপাশি অন্য যেসব গুণ রয়েছে, সেগুলো অর্জন করতে হবে। নৈতিকতা, সৃজনশীলতা, দায়িত্ববোধ ও কর্তব্যবোধ তোমাদের মধ্যে ধারণ করতে হবে। শুধু চিকিৎসক-প্রকৌশলী হওয়ার বাসনা লালিত করলে চলবে না। এর বাইরে যে ভালো মানুষ হতে হবে—এ কথা অনেক বেশি করে বলা জরুরি হয়ে পড়েছে। কারণ, এখন আমাদের ভালো মানুষের খুবই প্রয়োজন।’

সেলিমা আখতার বলেন, ‘জিপিএ-৫ পাওয়া নিজের জীবনের সিঁড়ি হিসেবে কাজে লাগাতে হবে। সব বিষয়ের ভালো অংশ গ্রহণ ও মন্দটি বর্জন করতে হবে। নিজের মধ্যে সহযোগিতার মানসিকতা গড়ে তুলতে হবে। তাহলে তোমরা প্রকৃত মানুষ হয়ে উঠবে।’

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের ফাঁকে চলে বন্ধুসভার সদস্য ও কৃতী শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। জেলা শহরের ৬৫ কিলোমিটার দূরে হরিপুর উপজেলা থেকে এসেছিল আইরিন আকতার। এবার আমগাঁও জামুন উচ্চবিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সে জিপিএ–৫ পেয়েছে। আইরিন বলে, ‘গোটা জেলার শিক্ষার্থীরা অনুষ্ঠানে আসবে। তাদের সঙ্গে পরিচয় হবে। এই লোভ সামলাতে পারিনি বলে ভোরে বাড়ি থেকে রওনা হয়েছি।’

পীরগঞ্জ উপজেলা থেকে বন্ধুদের সঙ্গে দল বেঁধে ঠাকুরগাঁওয়ের ইকো পাঠশালা অ্যান্ড কলেজে এসেছে মাইশা মুস্তারি। সে উপজেলার বণিক সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয় থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে। এসএসসির পরীক্ষার পর বন্ধুরা সবাই ভিন্ন ভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়েছে। মাইশা মুস্তারি বলে, ‘বন্ধুদের সঙ্গে আর আগের মতো দেখা হয় না। এখানে এসে বন্ধুদের দেখা পেলাম। পাশাপাশি অন্য শিক্ষার্থীদের সঙ্গেও মেশার সুযোগ পেলাম।’