নেতারা আরও বলেন, সমাবেশে যোগ দিতে জেলা ও উপজেলার নেতা-কর্মীদের নিয়ে তাঁরা একাধিক বৈঠক করেছেন। সমাবেশ সফল করতে লিফলেট বিতরণসহ প্রচারাভিযান চালানো হয়েছে। এতে জেলার নেতাদের পাশাপাশি বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন চৌধুরী পটুয়াখালীতে প্রচার চালান।

৪ ও ৫ নভেম্বর বরিশাল থেকে অভ্যন্তরীণ ও দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধের ঘোষণা দেয় বরিশাল জেলা বাস মালিক গ্রুপ। এরপর তিন চাকার যান চলাচলও বন্ধ ঘোষণা করা হয়। ওই ধর্মঘটের সঙ্গে পটুয়াখালী জেলা বাস মালিক সমিতিও একাত্মতা ঘোষণা করেছে বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন মৃধা।

জেলা বিএনপির সদস্যসচিব স্নেহাংশু সরকার বলেন, বাস বন্ধের বিষয়টি তাঁরা আগেই চিন্তা করে রেখেছেন। এ জন্য আগেভাগে আজ সকাল থেকে ছোট ছোট দলে নেতা-কর্মীরা বরিশালের পথে রওনা দিয়েছেন। যত বাধা আসুক না কেন, বরিশালের গণসমাবেশে পটুয়াখালী থেকে অন্তত ২০ হাজার নেতা-কর্মী যোগ দেবেন। ইতিমধ্যে তিনি বরিশালে পৌঁছেছেন।

স্নেহাংশু সরকার অভিযোগ করে বলেন, বাস ও তিন চাকার যান চলাচল বন্ধ ঘোষণার কারণে নৌপথে বরিশালে যাওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছিল। দুমকি ও অন্য এলাকা থেকে ট্রলার ভাড়া করা হলেও ক্ষমতাসীনদের হুমকির কারণে ট্রলারমালিকেরা চুক্তি বাতিল করছেন।