রংপুর থেকে ঢাকার নন–এসি বাসের ভাড়া ৭০০ টাকা। তবে আজ সকাল থেকে এসব বাসে ৫০ টাকা ভাড়া বেশি নেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া এসি বাসের ভাড়া ১০০ থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

হানিফ পরিবহনের কাউন্টারের সহকারী ব্যবস্থাপক হোসেন আলী বলেন, রংপুর থেকে ঢাকায় প্রতিদিন সাধারণত ২০ থেকে ২২টি বাস চলাচল করে। তবে তেলের দাম হঠাৎ বেড়ে যাওয়ায় এখন মাত্র আটটি বাস চলছে। নতুন বাসভাড়া এখনো নির্ধারণ করা হয়নি। কিন্তু গাড়ি চালাতে তো তেল লাগবে। যাত্রীদের সুবিধার জন্যই কিছুটা ভাড়া বাড়িয়ে অল্প কিছু বাস চালানো হচ্ছে।

এদিকে প্রতিদিন এনা পরিবহনের ২৫টি বাস ঢাকা-রংপুর রুটে চলাচল করে। তেলের দাম বাড়ার পর আজ বাসের সংখ্যা কমানো হয়েছে। নতুন বাসভাড়া নির্ধারিত না হওয়ায় মাত্র চারটি বাস ঢাকায় চলাচল করছে।

ঢাকা বাসস্ট্যান্ডের বিভিন্ন বাস কাউন্টার ও যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, রংপুর থেকে ঢাকার নন–এসি বাসের ভাড়া ৭০০ টাকা। তবে আজ সকাল থেকে এসব বাসে ৫০ টাকা ভাড়া বেশি নেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া এসি বাসের ভাড়া ১০০ থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। প্রকারভেদে ৯০০ টাকার এসি বাসের ভাড়া ১০০০ টাকা এবং ১ হাজার ৩০০ টাকার এসি বাসের ভাড়া ১ হাজার ৫০০ টাকা করে নেওয়া হচ্ছে।

১০০ টাকা বেশি ভাড়া দিয়ে এনা পরিবহনের এসি বাসের টিকিট কেটেছেন রিফাত হোসেন। তিনি বলেন, তেলের দাম অনেক বেড়েছে, তাই বাসের টিকিটের দামও বেড়ে গেছে। এখান তর্ক-বিতর্ক করে কোনো লাভ নেই।

ঢাকাগামী আরেক যাত্রী সেকেন্দার আলী বলেন, তেলের দাম বেড়েছে এ নিয়ে পরিবহনের মালিকদের কোনো চিন্তা নেই। তাঁদের কোনো ক্ষতি হবে না। ভাড়া বাড়িয়ে দিলেই হলো। সব চিন্তা যাত্রীদের। কারণ, যাত্রীদের পকেট থেকেই অতিরিক্ত টাকা বের হয়ে যাবে।

এদিকে কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে সরেজমিনে দেখা গেছে, আন্তজেলা বাস চলাচলের সংখ্যাও কমে গেছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাস চলাচল আরও কমে যাবে বলে বিভিন্ন বাস কাউন্টার থেকে জানানো হয়েছে। এসব বাসেও নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে বেশি টাকা আদায় করা হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রংপুর থেকে ঠাকুরগাঁওগামী বিভিন্ন পরিবহনের টিকিটে ১৯০ টাকা ভাড়া লেখা থাকলেও ১০ থেকে ২০ টাকা ভাড়া চেয়ে নেওয়া হচ্ছে। পঞ্চগড়ের ২৫০ টাকার ভাড়া নেওয়া হচ্ছে ২৭০ টাকা। একই সঙ্গে রংপুর থেকে নীলফামারীর ডিমলার ভাড়া ১১৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৩০ টাকা, জলঢাকার ভাড়া ৮০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৯০ টাকা নেওয়া হচ্ছে। অনেকটা বাধ্য হয়েই যাত্রীরা অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে গন্তব্যে যাচ্ছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন