নিহত ব্যক্তির স্ত্রী আঁখি নূর আক্তার প্রথম আলোকে বলেন, মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে পিয়াল নামের এক যুবক তাঁর স্বামীকে ফোন করে ডেকে নেন। যাওয়ার সময় স্বামী বলে যান, বাইরে সমস্যা হতে পারে। সমস্যা হলে স্ত্রীকে মুঠোফোনে জানাবেন। এর পর থেকেই সাইফুল নিখোঁজ ছিলেন।

কারও সঙ্গে তাঁর স্বামীর বিরোধ ছিল কি না, জানতে চাইলে আঁখি নূর আক্তার বলেন, সাইফুল ইসলাম একটি পত্রিকার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। বিরোধের বিষয়ে তাঁর জানা নেই।

সোনারগাঁও থানার পরিদর্শক (তদন্ত) তরিকুল ইসলাম জানান, সকালে দিঘিতে লাশ ভেসে থাকতে দেখে স্থানীয় লোকজন পুলিশকে খবর দেন। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। লাশ উদ্ধারের সময় সাইফুলের গলায় একটি পত্রিকার পরিচয়পত্র পাওয়া যায়। এ ঘটনায় আজ বেলা তিনটা পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন