সংসদ সচিবালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। সাক্ষাৎকালে তাঁরা ব্যবসা-বাণিজ্য, জিএসপি–সুবিধা, বাংলাদেশ শ্রম আইন, ন্যাশনাল অ্যাকশন প্ল্যান বাস্তবায়ন, তৈরি পোশাকশিল্প, আইন প্রণয়ন প্রক্রিয়া, সংসদীয় স্থায়ী কমিটির কার্যক্রম, নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নসহ বিভিন্ন বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।

এ সময় স্পিকার শিরীন শারমিন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কার্যকর পদক্ষেপের ফলে দারিদ্র্যের হার ৪০ শতাংশ থেকে ২১ শতাংশে নেমে এসেছে। দরিদ্র পরিবারের মায়েদের মুঠোফোনে মেয়েদের শিক্ষাবৃত্তি পাঠানো এবং বিধবা, মাতৃত্বকালীন ভাতাসহ বিভিন্ন ভাতা দেওয়া হচ্ছে। ফলে শিশুশ্রমও কমে এসেছে।

স্পিকার বলেন, তৈরি পোশাকশিল্পের ৮০ শতাংশ নারী শ্রমিকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হওয়ায় নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন নিশ্চিত হয়েছে। এ সময় স্পিকার ইউরোপীয় পার্লামেন্টের ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড কমিটির সদস্যদের তৈরি পোশাকশিল্পের শ্রমিকদের জন্য আন্তরিক ভূমিকা নেওয়ার জন্য অনুরোধ জানান।

ইউরোপীয় পার্লামেন্টের ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড কমিটির প্রতিনিধিদলের সদস্যরা স্পিকারের কাছে শ্রম আইন সংশোধন, শিশুশ্রম, শিশু অধিকার ও সংসদীয় কার্যক্রমের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে জানার আগ্রহ প্রকাশ করেন। এ সময় তাঁরা তৈরি পোশাকশিল্পের শ্রমিকদের বিষয়ে আন্তরিকভাবে পাশে থাকবেন বলে স্পিকারকে আশ্বস্ত করেন।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন