সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের কাজে সময়ক্ষেপণ ও ব্যয় বৃদ্ধির কারণ তুলে ধরে তমা কনস্ট্রাকশন বলেছে, কখনো প্রকল্পের নকশা পরিবর্তনের কারণে, কখনো যোগাযোগ অপ্রতুলতার কারণে, আবার কখনো বিদেশ থেকে মালামাল আমদানিতে সময়ক্ষেপণ হয়।

প্রতিবেদকের বক্তব্য

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) একটি প্রতিবেদন থেকে তথ্য-উপাত্ত নিয়ে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে প্রথম আলো। তমা কনস্ট্রাকশনের শেষ হওয়া অন্তত ১০টি প্রকল্প বিশ্লেষণ করে প্রতিবেদনটি তৈরি করে বিআইডব্লিউটিএ। এ ছাড়া পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ (আইএমইডি) আলাদা করে তমা কনস্ট্রাকশনের একটি প্রকল্প পর্যালোচনা করেছে। সরকারি দুটি সংস্থার তথ্য-উপাত্ত নিয়ে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে। এখানে প্রতিবেদকের নিজস্ব কোনো বক্তব্য নেই। তা ছাড়া প্রতিবেদনটি করার সময় তমা কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আতাউর রহমান ভূঁইয়ার বক্তব্যও নেওয়া হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিএর কোনো প্রকল্পে প্রথমবারের মতো দরপত্রে অংশগ্রহণ করে তমা কনস্ট্রাকশন। প্রকল্প বাস্তবায়নে তমার অতীত অভিজ্ঞতা জানতে অনুসন্ধানে নামে বিআইডব্লিউটিএ। তাতে দেখা যায়, সরকারি কাজ নিয়ে তমা কনস্ট্রাকশন সময়ক্ষেপণ করে। ব্যয়ও বাড়িয়ে নেয়।