সানজিদা ইসলাম ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার আচারগাঁও ইউনিয়নের ঝাউগড়া গ্রামের বাসিন্দা। তিনি পড়াশোনা করছেন কিশোরগঞ্জের গুরুদয়াল সরকারি কলেজে। ব্যবস্থাপনা বিষয়ে স্নাতক প্রথম বর্ষে পড়ছেন তিনি। নান্দাইল পাইলট বালিকা বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী থাকাকালে ২০১৪ সালে তিনি তাঁর ছয় সহপাঠীকে নিয়ে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ আন্দোলন গড়ে তুলে সাড়া ফেলেছিলেন। এরপর প্রথম আলো সানজিদার ওই দলকে ‘সাত সাহসী’ উপাধি দিয়ে একটি তথ্যচিত্র তৈরি করেছিল।
সানজিদাসহ এই সাত সাহসী ২০১৪ সালেই ঘাসফড়িং নামে একটি সংগঠন গড়ে তোলেন। এর পর থেকে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে সক্রিয়ভাবে কাজ করেছেন তাঁরা। তবে এখন সবাই আলাদাভাবে কাজ করেন।

বিবিসির প্রভাবশালী ১০০ নারীর তালিকায় সানজিদা ইসলামের নাম আসার পর প্রথম আলোর এই প্রতিনিধি মঙ্গলবার তাঁর বাড়ি যান। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা সবাই এখন আলাদাভাবে কাজ করি। কিন্তু প্রত্যেকেই তাঁদের জায়গা থেকে সক্রিয়।’ এ পর্যন্ত ৭০টির বেশি বাল্যবিবাহ ঠেকিয়েছেন সানজিদারা।

বাল্যবিবাহ ঠেকানো ছাড়া যৌতুক প্রথা বন্ধেও কাজ করেন সানজিদা। তিনি জানালেন, পড়াশোনা শেষ করে স্বাবলম্বী হতে চান। তাঁর মতে, এই বাল্যবিবাহ ঠেকানোসহ বিভিন্ন সামাজিক কাজে জড়িয়ে থাকতে হলে স্বাবলম্বী হতে হবে।

২০১২ সালের ভারতের দিল্লিতে ‘নির্ভয়া’ ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডের পর থেকে বিবিসি এ তালিকা প্রকাশ করে আসছে। এ বছর ছিল এ তালিকা প্রকাশের ১০ বছর পূর্তি। বিবিসির এ তালিকায় এবার স্থান পেয়েছেন ইউক্রেনের ফার্স্ট লেডি ওলেনা জেলেনস্কা, বলিউডের অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া, ইরানের পর্বত আরোহী এলনাজ রেকাবি।