বিলে বলা হয়েছে, ধর্মমন্ত্রী বা প্রতিমন্ত্রীকে চেয়ারম্যান করে জাকাত বোর্ড গঠন করা হবে। এর সদস্য হবেন ধর্মসচিব (ভাইস চেয়ারম্যান); ধর্ম, অর্থ ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের একজন করে যুগ্ম সচিব পদমর্যাদার কর্মকর্তা; সরকার-মনোনীত পাঁচজন আলেম; ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের দুজন প্রতিনিধি এবং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক (সদস্যসচিব)। বছরে এই বোর্ডের কমপক্ষে দুটি সভা অনুষ্ঠিত হবে। বোর্ডের পরিচালনা ব্যয় সরকার বহন করবে।

প্রস্তাবিত আইনে বলা হয়েছে, জাকাত সংগ্রহ, বিতরণ, ব্যবস্থাপনা ও পরিচালনাসংক্রান্ত নীতিমালা তৈরির ক্ষমতা বোর্ডের থাকবে। স্থানীয়ভাবে জাকাত সংগ্রহ ও বিতরণে কেন্দ্রীয়, সিটি করপোরেশন, বিভাগ, জেলা বা উপজেলা পর্যায়ে প্রয়োজনীয় সংখ্যক কমিটি গঠন করতে পারবে।

বিলে বলা হয়েছে, দেশের অভ্যন্তরে সংগৃহীত জাকাত; প্রবাসী বাংলাদেশি মুসলিম নাগরিক, কোনো বিদেশি মুসলিম ব্যক্তি বা কোনো সংস্থায় জমাকৃত জাকাতের অর্থ থেকে পাওয়া জাকাত এবং শরিয়াহসম্মত অন্য কোনো উৎস থেকে পাওয়া জাকাতের টাকায় তহবিল গঠন করা হবে। শরিয়াহসম্মত খাত ব্যতীত অন্য কোনো খাতে জাকাতের অর্থ ব্যয় বা বিতরণ করা যাবে না।

চট্টগ্রাম শাহি মসজিদ বিল সংসদে

উচ্চ আদালতের নির্দেশে সামরিক সরকারের আমলে করা আইন ‘চট্টগ্রাম শাহি জামে মসজিদ অরডিন্যান্স, ১৯৮৬’ বাতিল করে নতুন আইন করতে ‘চট্টগ্রাম শাহি জামে মসজিদ বিল, ২০২২’ জাতীয় সংসদে তোলা হয়েছে। গতকাল ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান বিলটি সংসদে তোলেন। পরে বিলটি পরীক্ষা করে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়।

বিলের কারণ ও উদ্দেশ্য সম্পর্কে প্রতিমন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রাম মহানগরে অবস্থিত নান্দনিক স্থাপত্যের অনন্য নিদর্শন এই মসজিদ। এই আইন পাস হলে অত্র অঞ্চলে ইসলাম প্রচার ও প্রসারে মসজিদটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে।