আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘হজ ও ওমরাহ ফেয়ার ২০২২’ শুরু হয়েছে। এই মেলা চলবে শনিবার সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত।
হজ এজেন্সিস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব) আয়োজন করেছে তিন দিনব্যাপী হজ ও ওমরাহ মেলা। মেলায় ১৫২টি স্টল ও পাভিলিয়নে ঘুরে ঘুরে খোঁজখবর নিচ্ছেন পবিত্র হজ কিংবা ওমরাহ পালনে যেতে ইচ্ছুক ব্যক্তি এবং তাঁদের আত্মীয়স্বজন। হজ ও ওমরাহর প্যাকেজ বুঝে নেওয়ার চেষ্টা করছেন তাঁরা।

রাজধানীর বনশ্রী থেকে মেলায় এসেছেন মাহবুবুর রহমান। তাঁর বাবা-মা আগামী বছর ওমরাহ পালন করতে যাবেন। কোন এজেন্সির মাধ্যমে যাবেন, বিমান, হোটেল, খাবারসহ অন্যান্য বিষয়ে খোঁজখবর নিচ্ছিলেন তিনি।

কাঁঠালবাগান থেকে আসা আতাউর রহমান বলছিলেন, ‘একই ছাদের নিচে হজ ও ওমরাহর প্যাকেজের খোঁজখবর পাওয়া যাচ্ছে, যাচাই–বাছাই করা যাচ্ছে। মেলা থেকে লিফলেট সংগ্রহ করছি। বাসায় গিয়ে সব পড়ে তারপর সিদ্ধান্ত নেব।’

একই ছাদের নিচে হজ ও ওমরাহর প্যাকেজের খোঁজখবর পাওয়া যাচ্ছে, যাচাই-বাছাই করা যাচ্ছে। মেলা থেকে লিফলেট সংগ্রহ করছি। বাসায় গিয়ে সব পড়ে তারপর সিদ্ধান্ত নেব
—মো. আতাউর রহমান, কাঁঠালবাগান থেকে আসা দর্শনার্থী

জাতীয় পর্যায়ে হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাবিষয়ক সম্মেলন-২০২২–এর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ দুপুরে গণভবন থেকে ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত হয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন তিনি। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী, ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান, মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী এনামুল হাসান, বাংলাদেশে নিযুক্ত সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত ইসা বিন ইউসুফ আল-দাহিলান এবং হাব সভাপতি এম শাহাদাত হোসাইন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।

হজযাত্রীদের প্রযুক্তিনির্ভর হজ ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে সম্যক ধারণা, সচেতনতা সৃষ্টি, হজ কেন্দ্র করে গজিয়ে ওঠা অসাধু ব্যক্তি ও মধ্যস্বত্বভোগীদের দৌরাত্ম্য রোধ এবং হজ ও ওমরাহ–সংক্রান্ত সঠিক তথ্য আদান–প্রদান এ মেলার লক্ষ্য বলে জানান হাব সভাপতি।

আগামীকাল শুক্রবার বাদ মাগরিব ‘বাংলাদেশের হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাপনা অর্জন ও করণীয়’ শীর্ষক একটি সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছে। এ ছাড়া ‘হজ ব্যবস্থাপনা ও মক্কা রুট’ নিয়ে শনিবার সকাল ১০টায় আরও একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে।